🕓 সংবাদ শিরোনাম

চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেপ্তার ঢাবি ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কারসরকারি গুদামে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬.৬৯ লাখ মেট্রিক টনসেচের অভাবে ত্রিশালে আমন চারা রোপণে দুশ্চিন্তায় কৃষকরাবিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনে ২৭৬ টি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের হদিস নেই!শেরপুরে ব্রক্ষপুত্র নদীর ভাঙ্গন, বিলীন হচ্ছে ফসলি জমিব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত মাকে বাঁচাতে ছেলে ইনজেকশন খুঁজে হয়রান!ফরিদপুরে গায়ে পচনধরা রোগীকে বাঁশ ঝাড়ে ফেলে দিলো স্বজনরা, উদ্ধারে পুলিশলকডাউনে বিয়ের আয়োজন করায় বর ও কনের পরিবারকে জরিমানাশাহজাদপুরে বইয়ের ভেতরে ৯০০ পিস ইয়াবা ও টাকাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতারত্রিশালে ভ্রাম্যমান আদালতের মোবাইল কোর্ট পরিচালনা

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৪ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৯ জুলাই, ২০২১ ৷

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লাখ ছাড়াল

ind
❏ বুধবার, জুলাই ২৯, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৮ হাজার ৫১৩ জন নতুন করে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লাখ ছাড়িয়ে গেল। একদিনে করোনায় মারা গেছেন ৭৬৮ জন। এ নিয়ে ৩৪ হাজার ১৯৩ জনের প্রাণ গেল করোনায়।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান বলছে, গত ১২ দিনে দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন পাঁচ লাখ মানুষ। এখন দেশটিতে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লাখ ৩১ হাজার ৬৬৯ জন।

আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও ভারতে করোনা রোগীর সুস্থ হয়ে ওঠার পরিসংখ্যানটাও বেশ স্বস্তিদায়ক। এখন পর্যন্ত ৯ লাখ ৮৮ হাজার ২৯ জন করোনা আক্রান্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন। অর্থাৎ দেশে মোট আক্রান্তের প্রায় ৬৪ দশমিক ৫১ শতাংশই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৩৫ হাজার ২৮৬ জন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় বিশ্বের তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। তবে আশঙ্কার বার্তা হল, করোনার বৃদ্ধির হারে বিশ্বের সব দেশকে ছাপিয়ে গেছে ভারত। ব্লমবার্গের করোনা ভাইরাস ট্র্যাকার থেকেই এই তথ্য উঠে এসেছে। ভারতে সর্বাধিক করোনা সংক্রমিত রাজ্য হল মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ ও কর্ণাটক।

শুধু সংক্রমণের দিক দিয়ে নয়, ভারতে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। সোমবারই মৃত্যু হয়েছে ৬৫৪ জনের। এদিন পর্যন্ত দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ হাজার ৪২৫।

এদিকে অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিন মানদেহে প্রয়োগের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে ভারত। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথভাবে তৈরি কোভিড -১৯য়ের এই সম্ভাব্য ভ্যাকসিন মানবদেহে তৃতীয় অর্থাৎ চূড়ান্ত দফায় পরীক্ষা চালানো হবে।

সেজন্য ভারতের পাঁচটি ক্লিনিক্যাল সাইট ইতোমধ্যেই প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বায়োটেকনোলজি বিভাগের সেক্রেটারি রেনু স্বরূপ। তবে চলতি বছরেই ভারতের বাজারে করোনার ভ্যাকসিন আসবে কি-না, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন