🕓 সংবাদ শিরোনাম

সরকারি গুদামে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬.৬৯ লাখ মেট্রিক টনসেচের অভাবে ত্রিশালে আমন চারা রোপণে দুশ্চিন্তায় কৃষকরাবিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনে ২৭৬ টি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের হদিস নেই!শেরপুরে ব্রক্ষপুত্র নদীর ভাঙ্গন, বিলীন হচ্ছে ফসলি জমিব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত মাকে বাঁচাতে ছেলে ইনজেকশন খুঁজে হয়রান!ফরিদপুরে গায়ে পচনধরা রোগীকে বাঁশ ঝাড়ে ফেলে দিলো স্বজনরা, উদ্ধারে পুলিশলকডাউনে বিয়ের আয়োজন করায় বর ও কনের পরিবারকে জরিমানাশাহজাদপুরে বইয়ের ভেতরে ৯০০ পিস ইয়াবা ও টাকাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতারত্রিশালে ভ্রাম্যমান আদালতের মোবাইল কোর্ট পরিচালনাঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের সংস্কার কাজে মাটির ব্যবহার!

  • আজ বৃহস্পতিবার, ১৪ শ্রাবণ, ১৪২৮ ৷ ২৯ জুলাই, ২০২১ ৷

কল্যাণ তহবিল থেকে টাকা পেল বাকৃবির ৫১৩ জন অসচ্ছল শিক্ষার্থী

bau
❏ বৃহস্পতিবার, জুলাই ৩০, ২০২০ শিক্ষাঙ্গন

হাবিবুর রনি, বাকৃবি প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ৫১৩ জন অসচ্ছল শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় কল্যাণ তহবিল থেকে এককালীন অর্থ প্রদান করেছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) প্রশাসন।

বুধবার (২৯ জুলাই) এসব শিক্ষার্থীদের নিজস্ব বিকাশ নম্বরে ২০৪০ টাকা করে আর্থিক অনুদান পাঠানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, এ আর্থিক অনুদান প্রদানের জন্য গত ১৯ মে থেকে ৪ জুনের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে দরখাস্ত আহ্বান করা হয়। অনলাইনের মাধ্যমে ৯৮৩ জন শিক্ষার্থীর আবেদন জমা পড়ে।

আবেদনকারী শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে বিভাগভিত্তিক নির্দিষ্ট সংখ্যক প্রকৃত অসচ্ছল ও দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের বাছাই করে গত ২৬ জুলাই এসএমএসের মাধ্যমে বাছাইকৃত শিক্ষার্থীদের অনুদানপ্রাপ্তির বিষয়টি জানানো হয়। পরে বুধবার (২৯ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কল্যাণ তহবিল থেকে ৫১৩ জন অসচ্ছল শিক্ষার্থীকে এককালীন ২০৪০ টাকা করে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর বিকাশ নম্বরে পাঠানো হয়।

এর আগে আর্থিক অনুদান প্রদানের পুরো প্রক্রিয়া স্বচ্ছতার সাথে পরিচালনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ফসল উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ. কে. এম. জাকির হোসেনকে আহ্বায়ক এবং সহযোগী ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল ইসলামকে সদস্য সচিব করে ৯ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়।

অনুদান প্রদান বিষয়ে অধ্যাপক ড. এ. কে. এম. জাকির হোসেন বলেন, আবেদনের ভিত্তিতে আমরা সঠিক যাচাই বাচাই করে শুধুমাত্র অসচ্ছল ও দারিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের এ অর্থ প্রদান করেছি। যারা এ অনুদান থেকে বাদ পড়েছে তাদের বেশিরভাগই আবেদনে ভূল তথ্য, তথ্য গোপন এবং সঠিক তথ্য দেয়নি। এ ক্ষেত্রে কোনো ধরনের লটারি করে বাছাই করা হয়নি।

তিনি আরও জানান, প্রতি বছরে কম সংখ্যক শিক্ষার্থী ও কম বাজেটের মধ্যে অনুদান প্রদান করা হলেও বিগত বছরগুলোর চেয়ে এবারই সব থেকে বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থীকে আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়েছে। এ অর্থ একমাস আগে দেওয়ার কথা থাকলেও সার্বিক দিক বিবেচনা করে এবং ইদকে সামনে রেখে গত বুধবার দেওয়া হয়েছে।

আপনার জেলার সর্বশেষ সংবাদ জানুন