ঈদের দিনে বোনের সাথে দেখা করে বাড়ি ফেরা হলো না মাসুদের

১২:২৯ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ৩, ২০২০ ঢাকা
Gazipur

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর:  ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে মোটরসাইকেলে করে কোরবানীর গোস্ত নিয়ে বোনের শ্বশুর বাড়িতে গিয়েছিলেন মো: মাসুদ পলান (৩৫)। কিন্তু বাড়ি ফেরার পথে মৃত্যুদূত হয়ে হঠাৎই সামনে এসে পড়ে দ্রুতগতির একটি মোটরসাইকেল। রেজিস্ট্রেশন বিহীন এই মোটর সাইকেলের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে মৃত্যুবরণ করেছেন তিনি। আর এতে করে তার পরিবারের ঈদের আনন্দ শোকে পরিণত হয়েছে।

ঈদের দিন শনিবার (১ অগাস্ট) দুপুর পৌনে ২টার দিকে গাজীপুরের কাপাসিয়া-চাঁদপুর সড়কের সৈয়ল বাড়ির মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত মো: মাসুদ পলান কাপাসিয়া উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের রাওনাট গ্রামের মো: মমতাজ উদ্দিন পলানের ছেলে।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও দুটি কন্যা সন্তান রেখে গেছেন। মাসুদ পলান গণবাণী ডট কম এর কাপাসিয়া ব্যুরো প্রধান আনিসুল ইসলামের শ্যালক।

পুলিশ জানায়, আজ সকালে তিনি উপজেলার জুনিয়া গ্রামের তার ছোট বোনের শ্বশুর বাড়ীতে ঈদ উপলক্ষে বেড়াতে বোনের সাথে দেখা করতে আসেন। সেখানে দুপুরে খাবার খেয়ে মোটর সাইকেল যোগে নিজ বাড়ীতে ফিরছিলেন। পথে কাপাসিয়া চাদপুর সড়কের সৈয়ল বাড়ী নামক স্থানে পৌছলে বিপরীত দিক থেকে ৩ জন আরোহী নিয়ে অপর একটি মোটর সাইকেল বেপরোয়া গতিতে এসে মামুন পলানের মোটর সাইকেলটিকে আঘাত করে। এতে তিনি মোটর সাইকেল থেকে ছিটকে পড়েন গুরুতরভাবে আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

আনিসুল ইসলাম বলেন, কাপাসিয়া সদরের জুনিয়া গ্রামে ছোট বোনের শ্বশুরবাড়ি। ঈদের দিন দুপুরে মোটরসাইকেলে কোরবানীর মাংস নিয়ে বোনের কাছে এসেছিল মাসুদ। দুপুরে এক সঙ্গে খাবার খেয়ে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। মিনিট দশেক পর খবর পাই দুর্ঘটনার। রেজিস্টেশন বিহীন বেপরোয়া গতির ওই মোটরসাইকেলের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। মাসুদের মাথার উপর দিয়ে ওই মোটরসাইকেলের চাকা চলে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাসুদকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি আরও জানান, ওই মোটরসাইকেলে তিনজন আরোহী ছিল। দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থলে মোটরসাইকেলটি ফেলে সবাই পালিয়ে গেছে।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। পরে রাত ৯টার জানাজার নামাজ শেষে তাকে পারিবারীক কবরস্থানে দাফন করা হয়।