আত্মসমর্পণ করবেন ওসি প্রদীপ, নেওয়া হচ্ছে কক্সবাজারে

২:২৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, আগস্ট ৬, ২০২০ Breaking News
pro

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ কক্সবাজারের টেকনাফ থানার বহুল আলোচিত ও বিতর্কিত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ আত্মসমর্পণের জন্য কক্সবাজারের পথে রওনা দিয়েছেন। এর আগে তিনি আত্মসমর্পণের ইচ্ছা প্রকাশ করে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশকে অনুরোধ জানালে মহানগর পুলিশ তাঁকে হেফাজতে নিয়ে বিশেষ ব্যবস্থায় কক্সবাজারে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বৃহস্পতিবার দুপুরে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, “চট্টগ্রামের দামপাড়া বিভাগীয় পুলিশ হাসপাতালে এসেছিলেন প্রদীপ কুমার দাশ। তাকে এখন পুলিশ হেফাজতে কক্সবাজারে নেওয়া হচ্ছে। তিনি যেহেতু মামলার আসমি, তিনি সেখানে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করবেন।”

প্রসংগত, গত ৩১ জুলাই রাত ৯টায় টেকনাফের বাহারছড়া এলাকায় কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর এলাকায় পুলিশের তল্লাশিচৌকিতে পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ লিয়াকত আলীর গুলিতে মারা যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ খান। এই ঘটনায় বুধবার কক্সবাজারের আদালতে সিনহার বোন বাদী হয়ে ওসি প্রদীপ ও পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় আত্মসমর্পণ করতেই ওসি প্রদীপ এখন কক্সবাজারের পথে রয়েছেন।

মামলার বাকি সাত আসামি হলেন- টেকনাফ থানার এসআই দুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, এসআই টুটুল এবং কনস্টেবল মো. মোস্তফা।

আসামিদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় ‘ইচ্ছাকৃত নরহত্যা’, ২০১ ধারায় আলামত নষ্ট ও মিথ্যা সাক্ষ্য তৈরি এবং ৩৪ ধারায় পরস্পর ‘সাধারণ অভিপ্রায়ে’ অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ আনা হয়েছে। এর মধ্যে ৩০২ ধারার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।

সিনহা নিহতের ঘটনায় জড়িত সব পুলিশ সদস্যকে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে বুধবার ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করে সশস্ত্র বাহিনীর সাবেক কর্মকর্তাদের সমিতি রিটায়ার্ড আর্মড ফোর্সেস অফিসার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন (রাওয়া)।

একই দিন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ এবং পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমেদ কক্সবাজারে গিয়ে সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

এরপর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন, এই ঘটনায় যে এই ঘটনায় দায়ী হিসেবে যে বা যারা চিহ্নিত হবে, তারাই শাস্তি পাবে। এর দায় বাহিনীর উপর পড়বে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও মঙ্গলবার সিনহার মা নাসিমা আখতারকে ফোন করে সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের আশ্বাস দেন।