🕓 সংবাদ শিরোনাম

বাংলাদেশিদের ভালোবাসা দেখে বিস্মিত ফিলিস্তিন রাষ্ট্রদূতঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যাত্রী পরিবহনের প্রতিযোগিতায় ট্রাক ও পিকআপখেলার আগে মাঠে ফিলিস্তিনের পতাকা ওড়ালেন কুড়িগ্রামের ক্রিকেটারেরাপাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে থানায় নেওয়া হলো প্রথম আলোর রোজিনা ইসলামকেকর্মস্থলে ফিরতে গাদাগাদি করে রাজধানীমুখী লাখো মানুষশেরপুরে পৃথক ঘটনায় একদিনে ৭ জনের মৃত্যুএক বিয়ে করে দ্বিতীয় বিয়ের জন্যে বড়যাত্রীসহ খুলনা গেল যুবক!আমার মৃত্যুর জন্য রনি দায়ী! চিরকুট লিখে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যাইসরাইলীয় আগ্রাসনের  বিরুদ্ধে ইসলামী বিশ্বের নিন্দার নেতৃত্বে সৌদি আরবত্রিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ জনের মৃত্যুতে নিহতের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতম

  • আজ মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৮ মে, ২০২১ ৷

পাকিস্তানে ক্রিকেট ম্যাচে সন্ত্রাসীদের এলোপাতাড়ি গুলি

pak
❏ শুক্রবার, আগস্ট ৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের উপর সন্ত্রাসী হামলার ক্ষত এখনো বয়ে বেড়াচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেট। ১০ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ থাকার পর আবারো বিদেশি দলগুলো সফর করা শুরু করেছে পাকিস্তানে। সেই সফরগুলো হয়েছে নানা রকম নিয়ম-কানুন আর কড়া নিরাপত্তার বেড়াজালে। আবারো পাকিস্তান ক্রিকেট শিকার হলো সন্ত্রাসী হামলার।

বৃহস্পতিবার (০৬ আগস্ট) পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের ওরাকজাই জেলার দ্রাদার মামাজাই এলাকায় এক স্থানীয় ক্রিকেট টুর্নামেন্ট (আমন ক্রিকেট টুর্নামেন্ট) ফাইনাল চলাকালীন একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী এলোপাথাড়ি গুলি করেছে। ছানায় গ্রাউন্ড নামে ওই মাঠে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় কারো হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। দেশটির পত্রিকা দ্য নিউজের প্রতিবেদনে এমনটাই জানানো হয়েছে।

তবে আচমকা এই সন্ত্রাসী হামলায় সবাই দিশেহারা হয়ে পড়েন। কারণ ফাইনাল ম্যাচটি দেখতে ওই সময় রাজনৈতিক নেতা, সাংবাদিক থেকে শুরু করে সাধারণ দর্শকরাও। দ্য নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ম্যাচ শুরুর আগেই সন্ত্রাসীরা এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। দর্শক, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক নেতারা কোনোক্রমে প্রাণ বাঁচালেও হতবিহবল হয়ে পড়েন সবাই।

দ্য নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই ম্যাচটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে হাজির ছিলেন জমিয়ত উলেমা-ই-ইসলামের নেতা হাজি কাশিম গুল। খেলা শুরুর পরেই মাঠের কাছে এক পাহাড়ের উপর থেকে গুলি ছুড়তে শুরু করে সন্ত্রাসীরা। সঙ্গে সঙ্গে মাঠে হুলুস্থুল পড়ে যায়। সবাই পড়িমরি করে দিগবিদিক ছুটতে শুরু করেন। ম্যাচও সঙ্গে সঙ্গে বাতিল করা হয়। কেউ আহত না হলেও এই ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

একদিন আগেই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান এহসান মানি জানিয়েছেন, পাকিস্তান এখন ক্রিকেটের জন্য সম্পূর্ণ নিরাপদ। খেললে দেশেই মাটিতেই খেলবেন, তা না হলে সিরিজই আয়োজন করবেন না তারা! মানির কথার রেশ কাটার সময়ও পেলো না, তার আগেই পাকিস্তানে ক্রিকেট ম্যাচ আরেকবার সন্ত্রাসী হামলা শিকার হলো।

উল্লেখ্য এর আগে ২০০৯ সালের শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়দের ওপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল। এরপর থেকে এখনও পাকিস্তানের মাটিতে স্বাভাবিক হয়নি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। তবে এই পরিস্থিতি সামাল দিয়ে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছিল দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। এর মধ্যেই নতুন করে এই হামলা হুমকির মুখে ফেলবে কিনা পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে তা সময়ই বলে দেবে।