সংবাদ শিরোনাম
সম্মেলন ডেকে হেফাজতের আমির নির্বাচন করা হবে: বাবুনগরী | সেনা কর্মকর্তা পরিচয়ে ৯ বছরে ৯ বিয়ে! অপেক্ষায় আরও ৪ | ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পুনর্নিয়োগ অনৈতিক ও বিধিবহির্ভূত: টিআইবি | চরফ্যাসনে ফার্মেসীতে র‍্যাবের অভিযান, দোকান বন্ধ করে পালাল ব্যবসায়ীরা | ইউএনও ওয়াহিদা ও তার স্বামীকে ঢাকায় বদলি | সবুজপাতা সফটওয়্যার ও মোবাইল অ্যাপসের উদ্বোধন করলেন রেলমন্ত্রী | ট্রাকচাপায় ছাগল মারা যাওয়ায় চালককে পিটিয়ে হত্যা | হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শুরু | রংপুরে দুই বোনের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা | ১৯ বছরেই সফল ডিজিটাল মার্কেটার তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী তুহিন |
  • আজ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা আক্রান্ত দিনাজপুর জেলা জজ ও স্ত্রীকে এয়ার এম্বুল্যান্সে ঢাকায় প্রেরণ

৭:৪২ অপরাহ্ণ | রবিবার, আগস্ট ৯, ২০২০ রংপুর
amuu

শাহ আলম শাহী, স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকেঃ উন্নত চিকিৎসার জন্য করোনা আক্রান্ত দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভূঞা ও তাঁর সহধর্মিণীকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স যোগে ঢাকায় নেয়া হয়েছে।

রোববার দুপুরে দিনাজপুর গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানের মিনার থেকে তাঁদের দু’জনকে ঢাকায় কুর্মিটোলা কোভিট হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন, দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস।

তিনি জানান, দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভূঞা ও তাঁর সহধর্মিণী গত ৫ আগষ্ট করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। শুধু জেলা জজ নন, দিনাজপুরে এখন অনেক প্রশাসনিক কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত।

দিনাজপুরে আশংকাজনক হারে করোনা আক্রান্ত’র সংখ্যা যেমন বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে করোনায় মৃতের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আরও ৫৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত সংখ্যা ২০৯৫ জন। এর মধ্যে আজ ৫৬ জনসহ এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তর মধ্যে সুস্থ্য হয়েছে ১৪৫৬জন। করোনায় জেলায় সরকারি হিসেবে এপর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৪২ জনের। আর করোনা উপসর্গ নিয়ে এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ৩১ জনের।

এনিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। কিন্তু, তারপরও মানুষ মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। মাস্ক পরিধান এবং সামাজিক দুরত্ব মেনে চলছে না জেলার ৯৫ শতাংশ মানুষ। সচেতনতার অভাব মারাত্মকভাবে পরিলক্ষিত হচ্ছে।

অনেক শিক্ষিত মানুষও সচেতন নয়, স্বাস্থ্যবিধি মানার। শহরে কেউ কেউ তা মানলেও পাড়া-মহল্লা এবং বস্তি এলাকাগুলোতে অধিকাংশ মানুষেই মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। গ্রামাঞ্চলে এ অবস্থা আরও করুন। স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই সেখানে।

প্রয়োজনে শহরে বা বাইরে বের হলে কেউ কেউ মাস্ক সংগে রাখলেও তা পরিধান করে না। পকেটে রাখে। কেউ আবার কানে, মাথায় আটকিয়ে বা থুতনিতে রাখে ঝুলিয়ে। হাট,বাজারগুলোতে আরও বেহাল অবস্থা। ক্রেতা-বিক্রেতারা অধিকাংশই মানছে না স্বাস্থ্যবিধি।