দেশে ফেরা ৭০ শতাংশ প্রবাসী জীবিকা সংকটে

১০:৩২ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৩, ২০২০ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত হয়ে দেশে ফিরে এসেছেন অনেক প্রবাসী। এর মধ্যে কর্মস্থল থেকে দেশে ফিরতে বলায় বাধ্য হয়ে ফিরেছেন ২৯ শতাংশ প্রবাসী। দেশে ফিরে কোনো কাজ পাচ্ছেন না তাঁরা। তাঁদের আয়ের ওপর নির্ভরশীল পরিবারগুলোও বিপদে। এদের মধ্যে ৭০ শতাংশই এখন জীবিকাহীন, ৭৫ শতাংশ আবার বিদেশে যেতে চান।

চলতি বছরের বাংলাদেশের ১২ জেলায় বিদেশফেরত অভিবাসীদের উপর পরিচালিত এক গবেষণায় ও বিষয়টি দেখা যায়। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা- আইওএম “র‌্যাপিড অ্যাসেসমেন্ট অব নিডস অ্যান্ড ভালনারেবিলিটিস অব ইন্টার্নাল অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল রিটার্ন মাইগ্র্যান্টস ইন বাংলাদেশ” শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এই গবেষণা ফলাফল প্রকাশ করেছে।

এ গবেষণাটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ‘রিজিওনাল এভিডেন্স ফর মাইগ্রেশন অ্যানালাইসিস অ্যান্ড পলিসি (রিমেপ)’- প্রকল্পের আওতায় পরিচালিত হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে সমন্বয় করে মোট ১ হাজার ৪৮৬ জন বিদেশ ফেরত ব্যক্তির ওপর চালানো জরিপের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।

আইওএম জানায়, ২০২০ সালের মে এবং জুলাই মাসে দেশের ১২টি উচ্চ অভিবাসনপ্রবণ জেলায় এ জরিপ পরিচালনা করা হয়, যার মধ্যে সাতটি জেলায় ভারতের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে।

মোট ৬৪ শতাংশ আন্তর্জাতিক অভিবাসী উল্লেখ করেন, করোনার প্রাদুর্ভাবে তাদের কর্মস্থল দেশে তথ্য এবং স্বাস্থ্যসেবা পেতে তাদের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ২৯ শতাংশ বলেছেন, যে দেশে তারা ছিলেন সেই দেশ ত্যাগ করতে বলায় তারা ফেরত এসেছেন।

২৩ শতাংশ জানান, তারা করোনা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন এবং পরিবারের কাছে ফেরত আসতে চেয়েছেন। ২৬ শতাংশ জানান, তাদের পরিবার তাদের ফেরত আসতে বলায় ফিরে এসেছেন। ৯ শতাংশ জানান, তাদের বলা হয়েছে সীমন্ত বন্ধ করে দেওয়া হবে এবং আটকে পড়ার ভয়ে তারা ফেরত এসেছেন। সাক্ষাৎকার দেওয়া ৫৫ শতাংশ তাদের ওপর শোধ না করা বর্ধিত ঋণের বোঝার কথাও জানিয়েছেন।

আইওএম বাংলাদেশের মিশন প্রধান গিওরগি গিগাওরি জানান, সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণকারীদের প্রায় ৭৫ শতাংশ জানান, তারা আবার অভিবাসনে আগ্রহী। তাদের মধ্যে ৯৭ শতাংশই করোনা প্রাদুর্ভাবের আগে যে দেশে কাজ করতেন, সে দেশেই আবার যেতে চান। অন্যদিকে ৬০ শতাংশ অংশগ্রহণকারী আরও ভালো বেতনের চাকরি নিশ্চিতে তাদের দক্ষতা বাড়াতে আগ্রহী।