সংবাদ শিরোনাম
নোয়াখালীতে ডোবায় মিলল অজ্ঞাত তরুণীর বস্তাবন্দি লাশ | ট্যাঙ্কারের সঙ্গে সংঘর্ষে ভেঙে পড়ল মার্কিন বিমান | মানিকগঞ্জে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সহকর্মীদের মানববন্ধন | সন্তানকে বিক্রি করে দিলেন বাবা: ইউরিয়া খেয়ে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্ঠা! | আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর রোগমুক্তি কামনায় দোয়া-মোনাজাত | লাশের মিছিল বেড়েই চলেছে, তবুও আলোচনায় নারাজ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান | বাংলাদেশের সাথে বন্ধ থাকা স্থলবন্দর খুলে দিতে ভারতকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অনুরোধ | কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ’র মৃত্যুতে দেশে একদিনের রাষ্ট্রীয় শোক | ইয়াবা দিয়ে ‘ফাঁসাতে’ গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন এএসআই | কাল হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন ইউএনও ওয়াহিদা |
  • আজ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা পরীক্ষার ফি কমালো সরকার

৩:২০ অপরাহ্ণ | বুধবার, আগস্ট ১৯, ২০২০ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাস টেস্টের ফি কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, হাসপাতালে গিয়ে পরীক্ষা করালে ফি লাগবে ১০০ টাকা। বাসায় গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করলে ফি দিতে হবে ৩০০ টাকা।

দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হলে সরকারিভাবে বিনা ফিতে এই পরীক্ষা করা হতো। পরে ২৯ জুন এতে ফি আরোপ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকারের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ। তখন হাসপাতালে বা বুথে গিয়ে পরীক্ষা করালে ফি দিতে হতো ২০০ টাকা। আর বাসায় গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করলে ফি দিতে হতো ৫০০ টাকা।

বুধবার (১৯ আগস্ট) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য মূল্য ২০০ টাকা থেকে ১০০ টাকা ও বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহের ফি ৫০০ টাকা থেকে কমিয়ে ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা কমে যাবার প্রশ্ন উঠছে। মানুষের আগ্রহ কমছে পরীক্ষায়, ঘরেই চিকিৎসা নিচ্ছেন, তাছাড়াও বন্যায় একটা কারণ। পরীক্ষার ফি এর কারণে অনেকের আগ্রহ কমেছে। যার কারণে ফি কমানো হলো। ল্যাবের সংখ্যা আপাতত বাড়ছে না। বিশ্বব্যাংকের অর্থ পেলে নতুন ল্যাব হবে।

তিনি আরও বলেন, এর ফলে পরীক্ষার হার বাড়বে বলে আশা করছি। সরকার চায় পরীক্ষা আরও বাড়ুক। বর্তমানে কিট ও ল্যাব যথেষ্ট পরিমাণে আছে। সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচারের দিন থেকে। আর কোভিড হাসপাতালের সংখ্যা কমানো হচ্ছে। যেহেতু সিট খালি থাকছে, আর কোভিড রোগীর সংখ্যাও কমছে। এছাড়া নন কোভিড রোগীর সংখ্যা অনেক। রোগীর হার অনুযায়ী কিছু কিছু কোভিড হাসপাতালকে পর্যায়ক্রমে নন কোভিড করা হবে।

পরীক্ষার ধরণ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, অ্যান্টিজেন নাকি অ্যান্টিবডি টেস্ট, এ নিয়ে মন্ত্রণালয় শিগগিরই সিদ্ধান্ত নেবে। আর ভ্যাক্সিনের ব্যাপারে সবদিকেই খোঁজখবর রাখা হচ্ছে। সবচেয়ে ভালো যেটা, সেটাই আনা হবে।

ভ্যাকসিন আমদানির আপডেট জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, আমরা সবদিকে খোঁজখবর রাখছি। চীন, রাশিয়া, অক্সফোর্ড এবং যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি কোম্পানি চেষ্টা করছে। আমরা ভ্যাকসিনের বিষয়টি নিয়ে সজাগ আছি। প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেছি, উনিও অবহিত হচ্ছেন। আমরা যখন সিদ্ধান্ত পেয়ে যাবো তখন জানাবো। আমরা ভ্যাকসিনের বিষয়ে তৎপর আছি। আমাদের জন্য সবচেয়ে কোনোটা ভালো, কে দিতে পারবে, চাহিদা কেমন, সব বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত নেবো।