ধোনিকে আবেগভরা চিঠি মোদির

১০:১১ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, আগস্ট ২০, ২০২০ খেলা
dhonimodi

স্পোর্টস আপডেট ডেস্কঃ ১৫ আগস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন ভারতের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। তার অবসরের পর পুরো ক্রিকেটবিশ্বে সাড়া পড়ে যায়। সাবেক থেকে বর্তমান সবাই তার প্রশংসায় ফেটে পড়েন।

এবার সম্মান জানিয়ে তাকে চিঠি লিখেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রীর চিঠি পেয়ে টুইটারে পোস্ট করে তাকে ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি মহেন্দ্র সিং ধোনি।

ধোনির উদ্দেশ্যে আবেগে ভরা দু’পাতার চিঠিতে মোদি লিখেছেন, ‘নিজস্ব স্টাইলে ছোট যে ভিডিওটি শেয়ার করেছেন, তা পুরো জাতির আলোচনার বিষয় হয়ে গেছে। আপনি ক্রিকেট ছাড়ায় ১৩০ কোটি ভারতীয় দুঃখিত। একইসঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেটের প্রতি অসামান্য অবদান রাখায় কৃতজ্ঞও।’

পেশাদার ক্রিকেটার হওয়ার আগে রেলওয়েতে ছোট চাকরি করতেন ধোনি। রাজনীতিতে জড়ানোর আগে মোদিও তৃণমূলে ছোট পর্যায় থেকেই জীবিকা নির্বাহ শুরু করেছিলেন।

প্রতিকূলতার নানা ধাপ পেরিয়ে চূড়ায় ওঠায় ধোনির জীবনের গল্পকে তরুণদের প্রেরণা মনে করেন মোদি, ‘নতুন ভারতের প্রেরণার ক্ষেত্রে আপনি গুরুত্বপূর্ণ ইমেজ তৈরি করেছেন, যেখানে ভাগ্য গড়তে কোন পরিবার থেকে উঠে আসছেন, তা বাধা হয়ে ওঠে না।’

‘আমরা কোথা থেকে এসেছি সেটা ম্যাটার করে না, কোথায় পৌঁছেছি সেটাই মুখ্য। এই প্রেরণা আপনি তরুণদের মধ্যে সঞ্চারিত করেছেন।’

ঠাণ্ডা মাথায় সব রকমের পরিস্থিতি সামলানোর ধোনির বিশেষ দক্ষতার কথা মনে করিয়ে প্রশংসা করেন মোদি, ‘আপনার চুলের স্টাইল কী ছিল, তা মুখ্য নয়। যেকোনো পরিস্থিতিতে আপনার শান্ত থাকা তরুণদের জন্য অনুকরণীয়।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনে করেন, ধোনিকে মনে রাখার জন্য কেবল ক্রিকেট মাঠই সীমাবদ্ধ হবে না, ‘কেবল ক্রিকেট ক্যারিয়ার, পরিসংখ্যান, ম্যাচ জেতার হিসাব নিয়ে ধোনিকে মনে রাখা হবে না। নিছক ক্রীড়াব্যক্তিত্ব হিসেবে দেখলেও আপনার প্রতি সুবিচার করা হয় না। আপনার অবদানকে একটা বিস্ময় হিসেবে দেখাটাই ঠিক হবে।’

এর জবাবে ধোনি লিখেছেন, একজন শিল্পী, সৈনিক ও খেলোয়াড় শুধুমাত্র প্রশংসা আশা করে। তারা চায় কঠোর পরিশ্রম ও ত্যাগ যেন সবার নজর কাড়ে ও প্রশংসিত হয়। এই প্রশংসা ও শুভকামনার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অনেক ধন্যবাদ।

এদিকে ভারতীয় বেশ কিছু সংবাদের খবরে ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে, অবসরে যাওয়া ধোনি রাজনীতিতে পা রাখছেন প্রতিবেশি দুই দেশ পাকিস্তানের ইমরান খান এবং বাংলাদেশের মাশরাফি বিন মুর্তজার মতো। দেশকে বিশ্বকাপ জিতিয়ে তুমুল জনপ্রিয় হওয়া ইমরান খান এখন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা মাশরাফিও জড়িয়েছেন রাজনীতিতে। গেল নির্বাচনেই নিজ এলাকা নড়াইল-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। ভারতেও ব্যাপক জনপ্রিয় ‘ক্যাপ্টেন কুল ধোনি’ কি সে পথেই আছেন?