২১ আগস্টের ঘটনায় খালেদাকে আসামি করার দাবি তথ্যমন্ত্রীর

৪:৪৫ অপরাহ্ণ | রবিবার, আগস্ট ২৩, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- খালেদা জিয়া ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট পুত্র তারেক রহমানকে দিয়ে শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশে বোমা হামলা চালান বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘খালেদার হুকুমে তারেক রহমানের সরাসরি নির্দেশে ২১ আগস্টেরর ঘটনা ঘটানো হয়েছিল। আলোচিত এ মামলার একজন সাক্ষী হিসেবে বলতে চাই, খালেদা জিয়াকে এ মামলায় হুকুমের আসামি করা হোক। এ দাবি সময়ের, এ দাবি জনগণের।’

রবিবার (২৩ আগস্ট) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আইভি রহমান পরিষদ আয়োজিত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের সহধর্মিনী আইভি রহমানের ১৬তম মৃত্যবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়াও হত্যার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এবং ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের ঘটনা একই সূত্রে গাঁথা। জিয়াউর রহমান হত্যার রাজনীতি বেছে নিয়েছিলেন, সে পথেই হাটেন খালেদা জিয়া।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘২১ আগস্টের নীল নকশা আগেই করা ছিল। আমরা মুক্তাঙ্গনে সমাবেশেরর অনুমতি চেয়েছিলাম, দেয়া হয়নি সেদিন। কারণ, সেখানে বোমা হামলা করা যেতো না। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে অনুমতি দেওয়া হলেও বড় বিল্ডিং এর ছাদে আমাদের নেতাকর্মীদের উঠতে দেওয়া হয়নি। এ হামলার পর প্রতিবাদ জানানো হলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে, কাদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। সব আলামত নষ্ট করা হয় সরকারের নির্দেশে।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি খুনের রাজনীতির ওপর প্রতিষ্ঠিত একটি দল। জিয়াউর রহমান জাতির পিতাসহ পুরো পরিবারকে হত্যা করতে ৭৫ এর ১৫ আগস্টেরর ঘটনা ঘটান। দেশবিরোধীদের মূল্যায়ন, বিরোধী মতকে দমন আর চৌকস মেধাবী অফিসারদের হত্যার মাধ্যমে নিজের ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করেন।’

আলোচনা সভায় পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম বলেন, ‘স্বাধীনতার অর্জনকে ভুলুণ্ঠিত করতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জিয়াউর রহমান নির্মম হত্যাকাণ্ড ঘটান। সেদিন দেশে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যান আজকের প্রধানমন্ত্রী। খুনিদের চক্রান্ত থেমে থাকেনি। আজকের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশে জিয়া পরিবার ২১ আগস্টের ঘটনা ঘটান। সেদিনও আমাদের প্রাণের নেত্রীকে আল্লাহ বাঁচিয়ে দেন। ষড়যন্ত্র থেমে নেই, এই খুনিদের সাজা হওয়া দরকার, খালেদার বিচার হওয়া প্রয়োজন।’