• আজ বৃহস্পতিবার। গ্রীষ্মকাল, ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ৩:২১মিঃ

পঞ্চগড়ে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে জমি বরাদ্দের চুক্তি স্বাক্ষরিত

৬:৪২ অপরাহ্ন | সোমবার, আগস্ট ২৪, ২০২০ দেশের খবর, রংপুর

নাজমুস সাকিব মুন, পঞ্চগড় প্রতিনিধি- পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের জন্য খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানের লক্ষ্যে চুক্তিপত্র স্বাক্ষরিত হয়েছে। সোমবার সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

জানা যায়, দেবীগঞ্জ উপজেলাধীন প্রধানপুর মৌজার ৩.১৭ একর, দেবীডুবা মৌজার ৩৪.৮৩ একর, দাড়ার হাট মৌজার ১৭৯.৭৮ একর সর্বমোট ২১৭.৭৮ একর অকৃষি খাস জমিতে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে।

সরকারের পক্ষে জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন ও বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) পক্ষে সহকারী ব্যবস্থাপক একেএম আনোয়ার চুক্তিপত্র স্বাক্ষর করেন।

জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আব্দুল মান্নানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. মজাহারুল হক প্রধান, পঞ্চগড় জেলার করোনা সমন্বয়কারী ভূমি সচিব মাক্ছুদুর রহমান পাটওয়ারী, বিভাগীয় কমিশনার আবদুল ওয়াহাব ভূঞা (ভার্চুয়ালি), পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, দেবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রত্যয় হাসান প্রমুখ বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ঢাকা থেকে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত ছিলেন রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন এমপি।

মন্ত্রী বলেন, কৃষিতে এগিয়ে থাকা দেশকে এখন শিল্প বিপ্লবের দিকে নিয়ে যেতে হবে। এ জন্য সরকার সারা দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে। এতে কর্মসংস্থানের পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্যের চাহিদাও বাড়বে। ফলে স্থানীয় অর্থনীতির চাকা সবসময় সচল থাকবে।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) সহকারী ব্যবস্থাপক একেএম আনোয়ার জানান, সরকার দেশে ২০৩০ সালের মধ্যে সারা দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে। এসব অঞ্চলে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তারা ৪০ হাজার বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। দেবীগঞ্জের অর্থনৈতিক অঞ্চলে ১০ হাজার দক্ষ অদক্ষ নারী-পুরুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। পঞ্চগড়ে উৎপাদিত কৃষি পণ্যের ব্যবহার নিশ্চিত হবে। কৃষকের পণ্যের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত হবে। বিশ্বব্যাপী বিনিয়োগ স্থানান্তরের যে প্রবণতা সৃষ্টি হয়েছে, এর পরিপ্রেক্ষিতে বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে কর্মকৌশল ও ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য কাজ করছে সরকার ও বেজা।