ইভ্যালীর পণ্য দেয়ার নামে প্রতারণা, ৩৯ লক্ষ টাকা জব্দ, আটক ৩

১০:৫৭ অপরাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ২৪, ২০২০ ঢাকা
eecbvaly

দেওয়ান আবুল বাশার, স্টাফ রিপোর্টার: মানিকগঞ্জের সিংগাইরে ইভ্যালী অনলাইন শপিং মল (ইভ্যালী ইকমার্স) এর পণ্য দেয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে ৩ যুবককে আটক করা হয়েছে। এ সময় জব্দ করা হয়েছে প্রায় ৩৯ লক্ষ টাকা।

সোমবার দুপুর ২ টার দিকে উপজেলার বলধারা এলাকায় উপজেলা নির্বার্হী অফিসার রুনা লায়লার ঝটিকা অভিযানে থানা পুলিশের সহযোগীতায় তাদেরকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের পারিল নওধা গ্রামের ফজল হকের ছেলে জামাল (৩৮), পারিল গ্রামের ওয়াজউদ্দিনের ছেলে রবিদুল ইসলাম(২৫), বলধারা গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে বিপ্লব(২৪)। অভিযুক্ত হেনা আক্তার একই এলাকার মো.কামাল হোসেনের স্ত্রী।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত হেনা আক্তার উপজেলার পারিল এলাকায় অফিস নিয়ে ইভ্যালী অনলাইন শপিং মলের পণ্য বিক্রির নামে দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন এলাকার লোকজনের কাছ থেকে অগ্রিম টাকা সংগ্রহ করে আসছে। পণ্য দেওয়ার সময় হলে লোকজনদের আজ-কাল করতে ঘুরাতে থাকে। এদিকে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিদিন ১ থেকে দেড় কোটি টাকা করে সংগ্রহ করতে থাকে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ পেয়ে সোমবার অভিযান চালিয়ে ইভ্যালী অনলাইন শপিং মলের কোন বৈধ কাগজপত্র না পাওয়ায় ওই প্রতিষ্ঠানের ৩ কর্মচারিকে আটক করেন। অভিযুক্ত হেনা আক্তার ও তার স্বামী মো.কামাল হোসেনকে আটক করা সম্ভব হয়নি। ফোন করলে তাদের দুজনের মোবাইল ফোন রিসিভ করেননি বলে জানা যায়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা বলেন, অভিযুক্ত হেনা আক্তার ইভ্যালী ইকর্মাস প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে প্রায় ৭ মাস যাবৎ ইভ্যালীর পণ্য বিক্রির নামে অগ্রীম কোটি কোটি টাকা সংগ্রহ করে। দু’একজনকে পণ্য দিলেও অধিকাংশ গ্রাহকদের ঘুরাতে থাকে। এতে বিভিন্ন সময় ভুক্তভোগীরা অভিযোগ দেয়। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের কাছে ইভ্যালীর কোন বৈধ কাগজ পত্র না থাকায় ৩৮ লক্ষ ৮৯ হাজার ৩ শত টাকা ক্যাশসহ ৩ জনকে আটক করা হয়।

আটককৃতদের উর্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে মামলা দিয়ে কোর্টে প্রেরণ করা হবে। ভুক্তভোগীদের যেন আর্থিক ক্ষতি না হয় সে দিকে খেয়াল রাখার আশ্বাস দেন নির্বাহী অফিসার রুনা লায়লা।