সংবাদ শিরোনাম

বিয়ে পাগল স্বামীর গোপনাঙ্গ ব্লেড দিয়ে কেটে দিলেন স্ত্রী!সিরাজগঞ্জে আলাদা সড়ক দুর্ঘটনায় ব্যবসায়ী ও শিশু নিহতটিকা সবাইকে দিয়ে নিই, তারপর আমি নেবো: প্রধানমন্ত্রীসুনামগঞ্জে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ২ মাসের অন্তঃসত্ত্বা, ১ জন আটকসংঘর্ষ, গোলাগুলি অতঃপর দুই লাশে শেষ হলো চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনরংপুরে ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ১৯ লাখ টাকা জরিমানানির্বাচন বর্জন করলেন ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী জান্নাতুল ইসলামদেশের প্রথম করোনা টিকা নিলেন নার্স রুনুমুন্সিগঞ্জে শিশু ধর্ষণের দায়ে যুবকের যাবজ্জীবনদেশে করোনা টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • আজ ১৪ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

একের পর এক মামলা দিয়ে ‘হয়রানি’, দম্পতির বিরুদ্ধে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী

◷ ৬:৫২ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, আগস্ট ২৫, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর
tangail sm20200409025801

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি- একের পর এক মামলা দিয়ে গ্রামবাসীকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার নারান্দিয়া গ্রামের মফিজুর রহমান ও তার স্ত্রী জাহানারা বেগমের বিরুদ্ধে। এতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী।

‘মামলাবাজ’ ওই দম্পত্তির হাত থেকে রক্ষা পেতে টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার ও টাঙ্গাইলের র‍্যাব-১২, সিপিসি-৩ এর কোম্পানী কমান্ডার কমান্ডারের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন গ্রামবাসী।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার কালিহাতী উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের নারান্দিয়া গ্রামের বাসিন্দা মফিজুর রহমান ও জাহানারা বেগম। তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে একের পর মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রামের লোকজনদের হয়রানি করাই তাদের নেশা। এ পর্যন্ত পাঁচটি মামলার মাধ্যমে অনেক লোককে হয়রানি করেছে এ দম্পতি। জেলও খাটিয়েছেন গ্রামের নিরীহ লোকদের।

এছাড়াও মানুষের সাথে ঝগড়া বিবাদ যেন তাদের প্রতিদিনের রুটিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেউ প্রতিবাদ করলে হুমকি আসে মামলার। এতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে গ্রামবাসী। তাই ওই মামলাবাজ দম্পতির অন্যায় অত্যাচারের প্রতিকার চেয়ে টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার ও টাঙ্গাইলের র‍্যাব-১২, সিপিসি-৩ এর কোম্পানী কমান্ডার কমান্ডারের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে গ্রামবাসী।

নারান্দিয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর, রফিকুল, লাভলীসহ আরো অনেকেই জানান, মফিজুর ও তার স্ত্রী জাহানারা অনেক খারাপ প্রকৃতির লোক। অযথা মানুষের সাথে ঝগড়া করা তাদের স্বভাব। আর প্রতিবাদ করলেই মামলার হুমকি আসে। তাদের আচরণে আমরা অতিষ্ঠ। এজন্য আমরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

নারান্দিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শুকুর মাহমুদ বলেন, আমি মফিজ ও তার স্ত্রীকে নিয়ে অনেক সালিশ করেছি। কোন সালিশও মানেনা, কারো কথাও শুনেনা। তারা অনেক খারাপ প্রকৃতির লোক। মামলাই তাদের নেশা।

অভিযোগের বিষয়ে মফিজুর রহমান বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয়। আমি এ ধরণের কাজের সাথে জড়িত নই।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, অভিযোগের কোন কপি এখনো আমার নজরে আসেনি।