সংবাদ শিরোনাম

ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়, ত্যাগের মহিমায় জীবন সাজান: কাদেরআল্লাহ’র সঙ্গে শিরক, নিষিদ্ধ হলো তুরস্কের বিখ্যাত ‘ইভিল আই’ তাবিজক্ষমা চাইলেন এমপি একরামুলএবার এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রীবাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দনসৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়ক থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধারনন্দীগ্রামে আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতারশাহজাদপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তাদের অর্থায়নে পাকা ঘর পাচ্ছে প্রতিবন্ধী দম্পতিবাংলাদেশে পরীক্ষা চালানোর জন্য ২০ লাখ টিকা দিয়েছে ভারত: রিজভীফরিদপুরের ভাঙ্গায় ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ: ২ স্কুলছাত্র নিহত

  • আজ ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রেল ভ্রমণে আরো শিথিল হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি

◷ ১০:৩০ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, আগস্ট ২৫, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
train

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ আগামী ৫ সেপ্টেম্বর থেকে আরও ১৯ জোড়া যাত্রীবাহী ট্রেন চালু করা হবে। রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক করার লক্ষে স্বাস্থ্যবিধির কিছু কিছু বিষয়ও শিথিল করা হয়েছে। তবে সব টিকিট অনলাইনেই বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আর এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে আন্তঃনগর ট্রেনের সিংহভাগই চালু হয়ে যাবে।

মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) রেলপথ মন্ত্রণালয় নতুন নির্দেশনা দিয়েছে বলে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফুল আলম গণমাধ্যমকে এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, রেল উপপরিচালক (ট্রাফিক ট্রান্সপোর্টেশন) খায়রুল কবিরের সই করা এ সংক্রান্ত নির্দেশনা আজ জারি করা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, যাত্রার ৫ দিন আগে থেকে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকেট বিক্রির সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ৫ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ দিন আগে থেকে টিকেট বিক্রি করা হবে। ৫ সেম্টেম্বর থেকে রাত্রিকালীন উচ্চশ্রেণির যাত্রীদের জন্য চাদর, কম্বল ও বালিশ সরবরাহ করা হবে, যা গত কিছু দিন বন্ধ ছিল।

এ ছাড়া ট্রেনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চা, কফি, বোতলজাত পানি, চিপস-বিস্কুটসহ প্যাকেটজাত খাবার সরবরাহ শুরু হবে। এ ছাড়া রেলওয়ে পাস এবং ও মিলিটারি ওয়ারেন্টের টিকেট আগের মতো ইস্যু করার ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলা হয় নির্দেশনায়।

জানা গেছে, আগামী ৫ সেপ্টেম্বর থেকে সব মিলিয়ে ৬৭ জোড়া ট্রেন চালু হবে। এর মধ্যে চার জোড়া কমিউটার, এক জোড়া লোকাল ট্রেন। অর্থাৎ বাকি ৬২ জোড়াই আন্তঃনগর ট্রেন। রেলে সব মিলিয়ে ৩৫৫টি যাত্রীবাহী ও মালবাহী ট্রেন চলাচল করে।

উল্লেখ্য করোনার কারণে গত মার্চের শেষ সপ্তাহে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ৩১ মে সীমিত আকারে চালু হয়। তখন সিদ্ধান্ত হয় প্রতিটি ট্রেনের অর্ধেক আসনের টিকিট বিক্রি করা হবে।