নতজানু নন বলেই শেখ হাসিনা বিশ্বনেতায় পরিণত: মির্জা ফখরুলকে নানক

৬:৩৬ অপরাহ্ণ | বুধবার, আগস্ট ২৬, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সরকার নতজানু পররাষ্ট্রনীতি অনুসরণ করছে বলেই রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান হচ্ছে না— বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক।

তিনি বলেন, যারা বলেন, নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো যায়নি। তারা আহাম্মকের স্বর্গে বাস করছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার নতজানু পররাষ্ট্রনীতি মানে না বলেই বিশ্বে শেখ হাসিনা আজ বিশ্বনেতায় পরিণত হয়েছে।

বুধবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের এক বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্ব রাজনীতির মধ্যমনী আখ্যা দিয়ে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘১০ লাখ রোহিঙ্গাকে শেখ হাসিনা সেই দিন যদি আশ্রয় না দিত তাহলে এই মানুষগুলোর আত্মাহুতি দেওয়ার মতো অবস্থা হয়েছিল সেদিন। বিশ্বমানবতার নেত্রী শেখ হাসিনা এই রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্বমানবতার ইতিহাসের এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। ইনশাআল্লাহ শেখ হাসিনা চৌকস, বিচক্ষণ পররাষ্ট্র নীতির মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো হবে। এই রোহিঙ্গাদের নিয়ে কোনো রাজনীতি করার সুযোগ মির্জা ফকরুল সাহেব আপনাদেরকে দেয়া হবে না।’

নানক বলেন, দুঃসাহসিক নেত্রী শেখ হাসিনা; অনেকের সন্দেহ ছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা যাবে না? যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা হলে, পৃথিবীর অনেক দেশের নাম বলা হতো, তারা নাকি উল্টে পাল্টিয়ে যাবে? কিন্তু শেখ হাসিনা এমন এক নেত্রী তিনি জনগণের ভিত্তির উপর রাজনীতি করেন। বঙ্গবন্ধুর রক্ত কোনোদিন পরাভব মানে না।

মহানগর নেতাদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, সংগঠনের কোনো বিকল্প নেই। মনে রাখতে হবে, ৭৫’র ১৫ আগস্ট যারা ঘটিয়েছিল, একাত্তরে যারা পরাজিত হয়েছিল, আন্তর্জাতিক সাম্রাজ্যবাদ, পাকিস্তানি গোষ্ঠী; তারা চুপ করে বসে নেই। কারণ একাত্তরে যে রাজাকার, আলবদর, আলশামস পরাজিত হয়েছিল তারা চুপ করে বসে ছিল না। কিন্তু আমরা তাদের সেই ষড়যন্ত্রের জালকে ছিন্নভিন্ন করে দিতে পারিনি। সেদিন আমাদের দলের ভিতরে আত্মকলহ ছিল। সেদিন ছিল ভাইয়ের রাজনীতি। আর সেই আত্মকলহ থাকার কারণে আমাদের যে অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে, সেই ক্ষতির ছোবলে জাতিকে অনেক ক্ষতিপূরণ দিতে হয়েছে।