সাবরিনার বিরুদ্ধে মামলা করবে নির্বাচন কমিশন

১০:৪৬ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, আগস্ট ২৭, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
sab

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তথ্য জালিয়াতি করে দুই এলাকায় ভোটার এবং দুটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নেয়ায় এ মামলা করছে ইসি।

বৃহস্পতিবার মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে ইসি সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের জানান, এ বিষয়ে তিনি এনআইডি শাখার মহাপরিচালককে নির্দেশনা দিয়েছেন। ইসি ইতিমধ্যে সাবরিনার একটি এনআইডি ব্লক করেছে।

ইসি সচিব বলেন, ‘সাবরিনার দ্বিতীয় এনআইডি পেতে কারা সাহায্য করেছিল, আমরা ইতিমধ্যে সে বিষয়ে তদন্ত করছি।’

ভোটার তালিকা আইন-২০০৯ অনুযায়ী দুটি এনআইডি রাখা দণ্ডনীয় অপরাধ। এর সর্বনিম্ন শাস্তি দুই বছরের কারাদণ্ড বা জরিমানা অথবা উভয়।

জানা গেছে, ২০০৯ সালে মোহাম্মদপুরে প্রথমবার ভোটার হন সাবরিনা শারমিন হোসেন। ওই এনআইডিতে বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা-১২২/ক, মোহাম্মদপুর পিসি কালচার হাউজিং সোসাইটি। জন্ম তারিখ-২ ডিসেম্বর ১৯৭৮। মাতার নাম কিশোয়ারা জেসমিন, স্বামীর নাম এইচ হক। পেশা সরকারি চাকরি আর শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতকোত্তর।

অন্যদিকে আগের ভোটার হওয়ার তথ্য গোপন এবং মিথ্য তথ্য দিয়ে ২০১৬ সালে পুনরায় গুলশানে ভোটার হন সাবরিনা। এই ভোটার নম্বর ২৬১১১৫৫০০২৩২৫। বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা-১৪/এ, আনোয়ার ল্যান্ডমার্ক, প্রগতী স্বরনী, বাড্ডা এখানে তার জন্ম তারিখ ২ ডিসেম্বর ১৯৮৩।

অর্থাৎ ৫ বছর বয়স কমিয়েছেন তিনি। মাতার নাম জেসমিন হোসেন আর স্বামী আরিফুল চৌধুরী। মাতার ও স্বামীর নামে পরিবর্তন হয়েছে। এছাড়া শিক্ষাগত যোগ্যতা কমিয়ে স্নাতক উল্লেখ করা হয়েছে। আগের এনআইডিতে সনাক্তকারী কোনো চিহ্ন না থাকলেও দ্বিতীয় এনআইডিতে ‘চিবুকে তিল’ থাকার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য নকল কোভিড-১৯ সার্টিফিকেট তৈরির মামলায় অভিযুক্ত জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ড. সাবরিনা ও তার স্বামী জেকেজির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল চৌধুরীর অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধান করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তদন্ত চলাকালীন দুদক জানতে পেরেছে যে সাবরিনার দুটি এনআইডি।