আওয়ামী লীগের দুঃশাসনে আজ গোটা সমাজ বিষাক্ত: রিজভী

৭:৩৪ অপরাহ্ণ | শনিবার, আগস্ট ২৯, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- আওয়ামী লীগের শাসনামলে দেশে গুম-খুনের সংস্কৃতি চালু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের দুঃশাসনে আজ গোটা সমাজ বিষাক্ত হয়ে গেছে। ছেলে মাকে জবাই করছে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিজেরাই আইন মানছে না—যাকে ইচ্ছা ধরে নিয়ে গুলি করছে, নাটক সাজাচ্ছে।

শনিবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ৭১ এর ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ‘জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের ইতিহাসে শুধু বাকশাল-দুর্ভিক্ষই আছে। তাদের ইতিহাস শুধু বিরোধী দলের ওপর নিপীড়ন-নির্যাতন, মানুষ হত্যা, বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ইতিহাস। সে কারণেই বিএনপির প্রতি তাদের এত বিদ্বেষ।’

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘১৫ আগস্ট জিয়াউর রহমান সেনাবাহিনীর দ্বিতীয় কর্মকর্তা ছিলেন। ওই দিন রাত পর্যন্ত যারা মন্ত্রী ছিলেন, তারা গিয়ে শপথ নিলেন খন্দকার মোশতাকের কেবিনেটে। খন্দকার মোশতাকের কেবিনেটের ২৩ জন মন্ত্রীর মধ্যে ২২ জন বাকশালের মন্ত্রী ছিলেন। মরহুম শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাকশালের মন্ত্রিসভা ছিল। সেই মন্ত্রিসভার মন্ত্রীরা মোস্তাকের কেবিনেটে শপথ নিলেন। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনীর তিন জন প্রধান খন্দকার মোশতাকের কাছে গিয়ে আনুগত্য স্বীকার করলেন। জিয়াউর রহমান তো যাননি।’

তিনি বলেন, ‘৭ নভেম্বর সিপাহী বিপ্লবের মাধ্যমে জিয়াউর রহমান এ দেশের রাজনীতি ও প্রশাসনের ক্ষমতায় আবির্ভূত হন। তারপর আওয়ামী লীগ যত অপকর্ম করেছে সেখান থেকে শুভদিক যেটা, সেখানে তিনি দেশকে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছেন। তারা গণতন্ত্র হত্যা করেছে, জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়েছেন। তারা গণমাধ্যম বন্ধ করে দিয়েছে, জিয়াউর রহমান তা খুলে দিয়েছেন। এই যে পার্থক্য— এটি একটি ইতিবাচক পার্থক্য ন্যায়ের পক্ষে, গণতন্ত্রের পক্ষে। আর তাদের কাজ হচ্ছে শুধু হত্যা। শুধু মানুষ হত্যা নয়, বিরোধী দল হত্যা, গণতন্ত্র হত্যা।’