সংবাদ শিরোনাম
ধর্ষণ থেকে বাঁচতে স্বামীর বন্ধুর পুরুষাঙ্গ কেটে দিলেন গৃহবধূ | ‘দোয়া চাই, যতদিন বেঁচে আছি সম্মানের সঙ্গে যেন বাঁচতে পারি’ | ‘বাংলাদেশের মানুষ সব ধরনের বাধা অতিক্রম করার সক্ষমতা রাখে’- প্রধানমন্ত্রী | শেখ হাসিনা আমাদের জন্য আলোকবর্তিকা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী | আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে ৬ পদক পেল বাংলাদেশ | কালকিনিতে আড়িয়াল খাঁ নদের ভাঙন রোধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন | ফুলবাড়ীতে শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষ্যে আনন্দ র‌্যালী ও সমাবেশ | সাহেদের মতো ভদ্রবেশী অপরাধীদের জন্য রায়টি বার্তা: ট্রাইব্যুনাল | যশোরে সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা | শেরপুরে বাবার সাথে অভিমানে যুবকের আত্মহত্যা |
  • আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সিনহা হত্যা: স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে আদালতে নন্দদুলাল

১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ৩১, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর, কক্সবাজার- সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে এবার আদালতে আনা হয়েছে পুলিশের এএসআই ও মামলার তিন নম্বর আসামি নন্দ দুলাল রক্ষিতকে।

সোমবার (৩১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালতে হাজির করা হয়েছে। আদালতের খাস কামরায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণ করা হচ্ছে।

এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব) নন্দদুলালকে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর ১০টা ২০ মিনিটে তাকে নিয়ে র‌্যাবের একটি দল কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নিয়ে আসে।

এর আগে গতকাল রোববার (৩০ আগস্ট) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে মামলার প্রধান আসামী পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলী আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর পুলিশ চৌকিতে গুলিতে নিহত হন মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় দুটি ও রামু থানায় একটি মামলা করে।

মামলায় এ পর্যন্ত সাত পুলিশ সদস্য, এপিবিএনের তিন সদস্য ও টেকনাফে পুলিশের করা মামলায় তিন সাক্ষীসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব)। আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের তিন সদস্য পৃথকভাবে বুধবার ও বৃহস্পতিবার আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।