‘সবাই চাকরি খুঁজলে হবে না, উদ্যোক্তা হতে হবে’- শিক্ষামন্ত্রী

৯:৩৭ অপরাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ৩১, ২০২০ জাতীয়
dipu

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, সবাই চাকরি খুঁজলে হবে না। উদ্যোক্তা হতে হবে, অনেককেই নিজের কর্মসংস্থান নিজেকেই সৃষ্টি করতে হবে। কাজেই সেই মনোভাবটিও আমাদের গড়তে হবে।

সোমবার ‘কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা: এসডিজি অর্জনে করণীয়’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ইরাব) আয়োজিত এ সেমিনারটি জুমের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষার হার ভবিষ্যতে আরো বৃদ্ধি পাবে। আমরা প্রতিটি উপজেলায় একটি করে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করছি। এগুলো হবে অত্যন্ত আধুনিক মানের। নিয়োগ করা হবে দক্ষ শিক্ষক। এতে থাকবে আধুনিক বিভিন্ন ট্রেড। তিনি বলেন, ‌‌’জনগোষ্ঠীকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে সাধারণ শিক্ষা ও মাদ্রাসা শিক্ষাতেও আমরা কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করছি। ২০২১ সালে চালু করার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু করোনার পরিস্থিতেতে সেটা সম্ভব হচ্ছে না। তবে এই পরিস্থিতি দীর্ঘস্থায়ী না হলে আশা করছি ২০২২ সালে সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা চালু করতে পারব। নবম-দশম শ্রেণিতেও কারিগরি শিক্ষার অন্তত দুটি ট্রেড বাধ্যতামূলক করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, ‘কারিগরির প্রসারে প্রয়োজন মান উন্নয়ন। আমাদের দীর্ঘদিন শিক্ষক নিয়োগ হয়নি। সেই নিয়োগ দেবার বড় উদ্যোগ নিয়েছি। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। মানসম্মত ল্যাবরেটরি, তাতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ইত্যাদি থাকতে হবে। এই শিক্ষায় শিল্প প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংযোগ থাকা খুব জরুরি। এ নিয়েও সরকার কাজ করছে।’

তিনি বলেন, ‘শর্ট কোর্স নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলেন। কিন্তু আমাদের এই শিক্ষাতে যেতেই হবে। কারণ আজকে একটা ডিগ্রি করে কাজে যাবো। এরপর আমার কিন্তু বারবার ডিগ্রি করতে আসার সুযোগ নেই। কাজেই ডিগ্রির কোর্সটাকে ভেঙ্গে ভেঙ্গে ছোট মডিউল করতে হবে। যার যে মডিউল প্রয়োজন সেটাতে সে শর্ট কোর্সে শিক্ষার্জন করে ডিগ্রি নেবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘ইবতেদায়ী শিক্ষকদের বিষয়টি আমরা অবগত আছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি খুব গুরুত্ব সহকারে দেখছেন। তিনি এসব মাদ্রাসা এমপিওভুক্তির সম্মতি দিয়েছেন। এটি নিয়ে কাজ চলমান রয়েছে। খুব শিগগিরই তাদের এমপিওভুক্তির আওতায় নিয়ে আসা হবে। এ ছাড়া এমপিওভুক্তকরণ এর ক্ষেত্রে যেসব সমস্যা রয়েছে সেগুলো ঠিক করতে আমরা কাজ শুরু করেছি। এমপিও নীতিমালা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে অবশ্যই ইবতেদায়ী মাদ্রাসার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হবে। তবে এ খাতে অর্থ বরাদ্দ ছিল না। অর্থের জন্য আমরা লিখেছিলাম।’

মন্ত্রী আরও বলেন, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যখন এমপিওভুক্তি করেছি তখন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন যে- এখন থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন করলে অনুমোদন নিয়ে স্থাপন করতে হবে। কিন্তু প্রায়শই দেখা যায়, যত্রতত্র যেকোনভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন করে ফেলেন। এরপর নানানভাবে চাপ প্রয়োগ করেন অনুমোদন ও স্বীকৃতির জন্য। গত কয়েকবছর ধরে প্রতিষ্ঠান স্থাপনের অনুমতিবলে শর্ত দেওয়া হয়- যে কেউ এমপিওভুক্তি চাইবে না। কিন্তু সকলেই এমপিও চায়। শেখ হাসিনার সরকারের আর্থিক সক্ষমতা বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে সত্যি। কিন্তু তারপরেও যদি প্রতিদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হতে থাকে তবে সরকারের সমন্বয় করার সাধ্য কতোটুকু আছে সেটাও বুঝতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী এসময় উল্লেখ করেন, ‘কারিগরি শিক্ষাগ্রহণের পর কোন শিক্ষার্থী বেকার থাকছে না। তাদের কর্মসংস্থান হচ্ছে। বরং যারা অন্যান্য শিক্ষায় আছে তারা সনদধারী হয়েও কর্মসংস্থান হচ্ছে না। আমাদের এদিকেও মনোযোগ দিতে হবে- সকলকে চাকরি খুঁজলে হবে না। উদ্যোক্তা হতে হবে। অনেককেই নিজের কর্মসংস্থান নিজেকেই সৃষ্টি করতে হবে। শিক্ষার্থীদেরকে হাতে-কলমে দক্ষ হয়ে গড়ে উঠতে হবে। আগামী দিনে এর বিকল্প কোন পথ নেই। কাজেই সেই মনোভাবটিও আমাদের গড়তে হবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খাঁন, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আবুল কাশেম, বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মোরাদ হোসেন মোল্লা। ইরাব সভাপতি মুসতাক আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাব্বির নেওয়াজ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ শরিফুল আলম সুমন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ইরাবের সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হক।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব মাওলানা শাব্বির আহমদ মোমতাজী, টেকনিক্যাল এডুকেশন কনসোর্টিয়াম অব বাংলাদেশ (টেকবিডি) সভাপতি প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ, কারিগরি শিক্ষা কল্যাণ সমিতির সভাপতি নাজমুল ইসলাম, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মাওলানা জয়নুল আবেদিন জিহাদী, ইরাব সাংগঠনিক সম্পাদক এম এম জসিম, প্রচার সম্পাদক রশিদ আল রুহানী, আইসিটি সম্পাদক মুরাদ হোসাইন ও সদস্য তানিয়া আক্তার।