সংবাদ শিরোনাম

ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়, ত্যাগের মহিমায় জীবন সাজান: কাদেরআল্লাহ’র সঙ্গে শিরক, নিষিদ্ধ হলো তুরস্কের বিখ্যাত ‘ইভিল আই’ তাবিজক্ষমা চাইলেন এমপি একরামুলএবার এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রীবাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দনসৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়ক থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধারনন্দীগ্রামে আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতারশাহজাদপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তাদের অর্থায়নে পাকা ঘর পাচ্ছে প্রতিবন্ধী দম্পতিবাংলাদেশে পরীক্ষা চালানোর জন্য ২০ লাখ টিকা দিয়েছে ভারত: রিজভীফরিদপুরের ভাঙ্গায় ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ: ২ স্কুলছাত্র নিহত

  • আজ ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইতালিতে এবার খুলে দেয়া হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

◷ ৫:০৩ অপরাহ্ন ৷ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০ আন্তর্জাতিক
image 1al

ইসমাইল হোসেন স্বপন, ইতালি: ইতালিতে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসায় এবার খুলে দেয়া হচ্ছে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। দেশটিতে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন ধরেই সেখানকার সব স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে স্কুল খুলে দেওয়া হলেও সামাজিক দূরত্ব অবশ্যই মেনে চলতে হবে। ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তে এবং শিক্ষামন্ত্রী লুসিয়া অ্যাজোলিনা এক ঘোষণায় স্কুল খুলে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী কন্তে জানিয়েছেন, সেপ্টেম্বরে নিরাপদে স্কুলগুলো পুনরায় চালু করতে সরকার অতিরিক্ত ১ বিলিয়ন ইউরো বরাদ্দ দিয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী অ্যাজোলিনা বলেন, এই অর্থ শুধুমাত্র করোনাভাইরাসকে মোকাবিলা করতে নয় বরং আমরা ভিন্ন আঙ্গিকের স্কুল নিয়ে স্বপ্ন দেখছি, যেখানে উন্নয়নের জন্য অর্থ ব্যয় হবে।

করোনায় বিপযর্স্ত ইতালির অর্থনীতির পুনর্গঠনে ১৭২ মিলিয়ন ইউরো অর্থ সহায়তা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। পরিস্থিতি সামাল দিতে এই অর্থ সহায়তা যথেষ্ট নয় বলে মনে করে ইতালি।

সম্প্রতি করোনা ভাইরাস শনাক্তে চালু হওয়া ইম্মনি অ্যাপ সবাইকে ডাউনলোড করার আহ্বান জানান ইতালির প্রধানমন্ত্রী জুসেপ্পে কন্তে। তিনি বলেন, এই অ্যাপ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী এবং তার সংস্পর্শে থেকেছে এমন ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে সক্ষম। অ্যাপের নিরাপত্তা নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।

এদিকে, করোনার কারণে ইতালির সাথে বাংলাদেশ বিমানের যোগাযোগ বন্ধ থাকায় অনেকে প্রবাসী বাংলাদেশীরা এখনো ইতালি ফিরে যেতে পারিনি। যেকারণে অনেকেরই কাজ হারিয়েছে। এদিকে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশী রা দুই তিন বার টিকেট কিনেও যেতে পারিনি। দুই বার টিকেট কিনেও ইতালি ফিরতে না পারায় আর্থিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন অনেক প্রবাসীরা।