মাশরাফির ব্রেসলেট নিলামের টাকায় নির্মিত হচ্ছে বিশেষায়িত হাসপাতাল

৫:০২ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২০ খুলনা
mash

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি মুর্তজা নিজ হাতে গড়া নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে ১০ শয্যা বিশিষ্ট বিশেষায়িত হাসপাতালের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। মাশরাফির ব্রেসলেট নিলামের অর্থ দিয়ে এই হাসপাতালে নির্মাণ করা হবে।

শুক্রবার সকাল ১১টায় এমপি মাশরাফি বিন মুর্তজার হাতে গড়া নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নড়াইলের শরীফ আব্দুল হাকিম ডায়াবেটিক হাসপাতালের নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন হেলথ কেয়ার সেন্টারে কেক কাটা ও আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি শামীমূল ইসলাম টুলুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট সাঈফ হাফিজুর রহমান খোকন, স্পেকটা হেক্স্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. আকরামুজ্জামান ও পরিচালক মো. আহসানুজ্জামান, মাশরাফীর পিতা গোলাম মর্ত্তোজা স্বপন, নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম অনিক প্রমুখ।

আলোচনা সভায় ঘোষণা দেয়া হয়, মাশরাফি বিন মুর্তজার ব্যবহৃত ব্রেসলেট নিলামের ৪২ লাখ টাকার একটি অংশ ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার কর্মহীন হয়ে পড়া খেলোয়াড় এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধে খরচ হয়েছে। ব্রেসলেট নিলামের বাকি ২৫ লাখ টাকা এবং নড়াইলের কয়েকজন ব্যক্তি ও সংগঠনের আর্থিক সহায়তায় নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন ১০ শয্যা বিশিষ্ট বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মাণ করবে, যেখানে ২৪ ঘণ্টা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের উপস্থিতিতে স্বল্প খরচে সাধারণ মানুষের জন্য স্বাস্থ্য সেবা দেয়া হবে।

হাসপাতালটি সরকারি অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। অনুমোদন পেলেই এটি নির্মাণের কাজ শুরু হবে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য ২০১৭ সালের ৪ সেপ্টেম্বর মাশরাফির হাত ধরে ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের যাত্রা শুরু হয়। শুরু থেকেই ফাউন্ডেশন জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে বাড়িতে বাড়িতে ফ্রি ও স্বল্প খরচে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান, ডেঙ্গু ও করোনা মহামারি প্রতিরোধে বিভিন্ন কর্মকাণ্ড, শিক্ষা, সংস্কৃতি, খেলাধুলার উন্নয়নে উচ্চ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা, পরিবেশ সংরক্ষণ, সামাজিক নিরাপত্তা, কৃষিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সামাজিক উন্নয়নমূলক কাজ করে আসছে।