সংবাদ শিরোনাম

ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়, ত্যাগের মহিমায় জীবন সাজান: কাদেরআল্লাহ’র সঙ্গে শিরক, নিষিদ্ধ হলো তুরস্কের বিখ্যাত ‘ইভিল আই’ তাবিজক্ষমা চাইলেন এমপি একরামুলএবার এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রীবাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দনসৈয়দপুর-রংপুর মহাসড়ক থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধারনন্দীগ্রামে আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতারশাহজাদপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তাদের অর্থায়নে পাকা ঘর পাচ্ছে প্রতিবন্ধী দম্পতিবাংলাদেশে পরীক্ষা চালানোর জন্য ২০ লাখ টিকা দিয়েছে ভারত: রিজভীফরিদপুরের ভাঙ্গায় ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ: ২ স্কুলছাত্র নিহত

  • আজ ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বেনাপোল বাজারে কাঁচা মরিচের আকাশচুম্বী দাম

◷ ৪:০৬ অপরাহ্ন ৷ শনিবার, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২০ খুলনা, দেশের খবর
67 morich r

মহসিন মিলন, বেনাপোল প্রতিনিধি- বন্দর নগরী বেনাপোল বাজারে কাঁচা মরিচের কেজি ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ফলে সমস্যায় পড়েছে খেটে খাওয়া নিন্ম আয়ের মানুষ। আর শুকনা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৩শ’ টাকায়। যার কারণে কাচা মরিচবিহীন তরকারি রান্না করছে অনেকেই।

শনিবার বেনাপোলের বিভিন্ন বাজার ঘুরে কাচা মরিচের দামের এ তথ্য জানা গেছে। সেই সাথে লাগামহীনভাবে বাড়ছে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য। ক্রয় ক্ষমতার বাইরে যাওয়ায় সমস্যায় পড়েছে নিন্ম আয়ের মানুষেরা।

ভ্রাম্যমাণ আদালত, জেল-জরিমানার মত কঠোর আইন প্রনয়ন করেও কোনভাবেই যেন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের কমানো যাচ্ছে না। জিনিস-পত্রের দাম বেড়েই চলেছে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন বন্যা ও বৃষ্টির কারণে কাঁচা মরিচসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বেড়েছে।

বাজার করতে আসা নিন্ম আয়ের অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম তাদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।

করোনার কারনে তাদের আয় রোজগার নেই। তারপরও পরিবারের জন্য ধারদেনা করে বাজার করতে হচ্ছে। বাজারে এসে জিনিস পত্রের দাম শুনলে অনেকেই চিন্তায় পড়ে যায়।

মাত্র কয়েক দিনের ব্যবধানে ৩৮ টাকার কেজি মোটা চাউল এখন বিক্রি হচ্ছে ৪৪ টাকা, ৪০ টাকার কাঁচা ঝাল ২০০ টাকা, ৪০ টাকার পেয়াজ ৪৫ টাকা, রসুন ১০০ টাকা, ২০ টাকার বেগুন ৭০ টাকা, ১০ টাকার পেপে ৩০ টাকা, ২০ টাকার কাঁচকলা ৫০ টাকা, বরটি ৪০ টাকা, কুচুর লতি ৪০ টাকা,কচুর মুখি ৪০ টাকা,

ওল ৪৫ টাকা, আলু ৩৫টাকা, ডাটা ৩০টাকা, টমাটা ১০০টাকা, পেশাক ২০টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৩০টাকা, বাঁধা কপি৫০টাকা বেনটি৪০টাকা, ঝিনকা ৩০টাকা, লাল শাক ৩০টাকা, লাউ পিচ ৩০টাকা, কাকলো ৩০টাকা, লেপু পিচ ৫ টাকা, আমড়া ৩০টাকা, মিষ্টি কুমড়া ২৫ টাকা।

সকল ধরনের সবজির দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বাড়ার ব্যাপারে ব্যবসায়ীরা রেজোয়ান বলেন, বিশেষ করে বন্যা ও বৃষ্টির ফলে কাঁচা তরিতরকারীর দাম ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তাছাড়া করোনার কারনে বাইরে থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য কম আসার কারণে চাহিদার তুলনায় দ্রব্যের মজুত কম থাকায় জিনিস পত্রের দাম বাড়ছে।