সংবাদ শিরোনাম
এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ধর্ষণের ঘটনায় আসামি মাহফুজুর রহমান গ্রেফতার | গাজীপুরে পিবিআইয়ের অভিযানে অপহরণকারী চক্রের  ২সদস্য গ্রেফতার | সিলেট এবং খাগড়াছড়িতে ধর্ষণের প্রতিবাদে গাজীপুরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ | শিল্পপতি হাসান মাহমুদ চৌধুরীর মৃত্যুতে ভূমিমন্ত্রীর শোক | বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড দলকে অভিনন্দন জানালেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী | ‘শেখ হাসিনার জন্যই গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা পেয়েছে’- মেয়র তাপস | ‘নভেম্বরে আসতে পারে করোনার ভ্যাকসিন’- স্বাস্থ্যমন্ত্রী | শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির বাতিঘর ও কাণ্ডারি: শিক্ষামন্ত্রী | শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা ও এইচএসসি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন শিক্ষামন্ত্রী | দেশে ইতিহাস বিকৃতির জনক জিয়াউর রহমান: কাদের |
  • আজ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফটিকছড়িতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত হাফেজ আকবরের দায়িত্ব নিলেন মেহেদি হাসান বিপ্লব

৮:২৩ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর- চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ছাদে পানি দেয়া অবস্থায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন আহম হাফেজ মোঃ আলী আকবর।

এতে মুহূর্তেই তার মাথা, মুখসহ শরীরের বিভিন্ন  ঝলসে যায়। পরে স্থানীয়রা দ্রুত আলী আকবরকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে পাঠায়। কিন্তু অবস্থা গুরুত্বর হওয়ায় প্রয়োজন হয় উন্নত চিকিৎসার।

তবে অসহায় পরিবারের পক্ষে উন্নত চিকিৎসার ব্যয় বহনের সামর্থ্য না থাকায় মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিল আলী আকবর। এমন সময় তার পাশে এসে দাঁড়ান মানবতার ফেরিওয়ালা খ্যাত ব্যবসায়ী মেহেদী হাসান বিপ্লব। যিনি আন্তর্জাতিক কোল এনার্জি কোম্পানি জেএইচএম ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর (ডিএমডি)।

জানা যায়, মেহেদী হাসান বিপ্লবের তত্ত্বাবধানে পরে আলী আকবরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়। দীর্ঘ এক মাসের বেশি সময় উন্নত চিকিৎসায় হাফেজ আকবর গত সপ্তাহে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

ফটিকছড়ি উপজেলার ভুজপুর থানার দাতঁমারা ইউনিয়নের বালুটিলা এলাকায় জন্মগ্রহণ করা মেহেদী হাসান বিপ্লব শুধু হাফেজ আকবরের চিকিৎসার খরচ বহন করেই শেষ করেননি। দায়িত্ব নিয়েছেন তার অসহায় পরিবারেরও। আশ্বস্ত করেছেন, তাদের যেকোনো প্রয়োজনে সহযোগিতা করবেন তিনি।

জানতে চাইলে মেহেদী হাসান বিপ্লব বলেন, আমি জীবনে যা কিছু করেছি মন দিয়ে করার চেষ্টা করেছি। যার সফলতাও আমি দু-হাত ভরে পেয়েছি। ফলে যতটুকু পেরেছি মানুষের উপকার করার চেষ্টা করেছি। টাকা তো মানুষ কবরে নিয়ে যেতে পারে না। যা আয় করেছি সেই আয়ের কিছু অংশ মানুষকে এখন দান করার চেষ্টা করছি। কিন্তু ভবিষ্যতে আমার ইচ্ছা আরও অনেক বড়। যাতে জীবনের অর্জিত সকল অর্থ মানুষের জন্য দান করে যেতে পারি।