সালমান শাহর সহচর সেই মতির পাশে দাঁড়ালেন মেহেদী হাসান বিপ্লব

⏱ ৮:৪০ অপরাহ্ন | রবিবার, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০ 📂 বিনোদন

বিনোদন প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর- নব্বই দশকের তুমুল জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সালমান শাহ অভিনীত ‘স্নেহ’ সিনেমার প্রোডাকশন বয়ের কাজ করেন মতি। মতির বয়স তখন ১২ বছর। প্রথম দিন পানি দিতে গেলে নাম জানতে চান সালমান শাহ। সেদিনই এই নায়কের সঙ্গে মতির প্রথম আলাপ। এরপর থেকে মতিকে সঙ্গেই রাখতেন সালমান শাহ।

অমর নায়ক সালমান শাহ ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রহস্যজনকভাবে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পর থেকেই মানবেতর জীবনযাপন করছেন মতি। করোনার এই দুর্দিনে সালমান শাহর অভাব আরো গভীরভাবে অনুভব করেন মতি।

মতির এক মেয়ে এক ছেলে। মেয়েকে কোরআন শিখিয়েছেন সালমান শাহর কবর জিয়ারত করার জন্য। কিন্তু দৈন্যদশার জন্য সিলেটে গিয়ে কবর জিয়ারত করার ক্ষমতা নেই তার। বাসা ভাড়া দিতে না পারার কারণে ঢাকায় থাকাও অনিশ্চিত। এমন খবর পেয়ে তার পাশে দাঁড়ালেন মানবতার ফেরিওয়ালাখ্যাত মেহেদী হাসান বিপ্লব।

আজ সালমান শাহর ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী। এমন দিনে মতিকে ডেকে তাঁর হাতে নগদ অর্থ তুলে দিলেন আন্তর্জাতিক কোল এনার্জি কোম্পানি জেএইচএম ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর (ডিএমডি) মেহেদী হাসান বিপ্লব। সালমান শাহর মৃত্যুর দিনে এমন সহযোগিতায় আপ্লুত মতি।

মতি বলেন, ‘সালমান ভাইকে হারিয়েছি ২৪ বছর। মৃত্যুর এত বছর পরও ভাইয়ের জন্যই আমি সহযোগিতা পেয়েছি। বিপ্লব স্যার আজ সকালে তাঁর অফিসে ডেকে আমাকে টাকা দেওয়ার সময় মেয়েকে নিয়ে সিলেটে গিয়ে ভাইয়ের কবর জিয়ারত করতে বলেছেন। আমি আগামীকালই সিলেট যাব কবর জিয়ারত করার জন্য। আপাতত বাড়িটি ছাড়তে হবে না। আজই বাড়িওয়ালাকে ভাড়ার টাকাটা দিয়ে দেব।’

মেহেদী হাসান বিপ্লব বলেন, ‘আমি আসলে একজন অসচ্ছল মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি। সালমান শাহর মতো জনপ্রিয় নায়কের সহযোগী এখন এমন খারাপ অবস্থায় আছেন, বিষয়টি আমি গতকালই শুনেছি। মনে হলো, যদি তাঁর কিছুটা সহযোগিতা হয়, এই ভেবে আমি তাঁর পাশে দাঁড়ানোর কথা চিন্তা করেছি।’

করোনাকালে জেএইচএম ইন্টারন্যাশনালের উদ্যোগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে প্রায় দুই হাজার দুস্থ মানুষের জন্য খাদ্যসামগ্রীর প্যাকেট হস্তান্তর করেন মেহেদী হাসান বিপ্লব। এ ছাড়া বিভিন্ন সময় অসচ্ছল মানুষের পাশে তাঁকে দাঁড়াতে দেখা গেছে।