সংবাদ শিরোনাম
নান্দাইলে বাস চাপায় নারী নিহত | ২০২১ সালে খুলে দেয়া হবে স্বপ্নের পদ্মাসেতু: রেলমন্ত্রী | সিঁদ কেটে তুলে নিয়ে শিশু ধর্ষণকারী আলী হোসেন গ্রেফতার | সব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জন্য সুখবর দিলেন প্রধানমন্ত্রী | হাসপাতালের পরীক্ষার বিল ডাকাতির মতো: মেয়র আতিক | টাঙ্গাইলে খাটের নিচে মিলল ১শ’ বোতল ফেন্সিডিল, গ্রেফতার ১ | কক্সবাজারের ৮ থানার ওসিসহ ২৬৪ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে একযোগে বদলি | পঞ্চগড়ে মায়ের সাথে অভিমান করে মাদ্রাসা ছাত্রীর আত্মহত্যা | রাজবাড়ীতে আ.লীগ নেতাকর্মীদের পুলিশি হয়রানির অভিযোগ, প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন | কুড়িগ্রামের অবৈধ কর্ম-কান্ডের দায়ে আ‘লীগ নেতা আটক, গণধোলাই! |
  • আজ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইউএনও ওয়াহিদার বাবার কোমরের নিচের অংশ অবশ হয়ে গেছে

৮:৫৩ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
uno

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখের (৬৫) কোমরের নিচের অংশ পুরোটাই অবশ হয়ে গেছে। কথা বলতে ও খেতে পারলেও চলাচল করতে পারছেন না তিনি। চিকিৎসকরা বলছেন, আস্তে আস্তে এই সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগের প্রধান তোফায়েল হোসেন ভূঁইয়া সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ওমর আলীর ডায়াবেটিস আছে। ঘটনার রাতে তিনি ঘাড়ে আঘাত পান। স্পাইনাল কর্ডে আঘাতটি গুরুতর ছিল। এ ক্ষেত্রে তার দুই হাত কিছুটা সচল থাকলেও কোমরের নিচ থেকে পা পর্যন্ত অবশ আছে। এটি সারতে কিছুটা সময় নেবে। এমনিতেই তার অবস্থা আগের থেকে দিন দিন উন্নতি হচ্ছে।

হাসপাতালের ভিআইপি কেবিনে তিনি এখন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। কোমরের নিচের অংশ কিছুটা অবশ হয়ে গেলেও তিনি কথা বলতে পারছেন।

ওমর আলী শেখের ছেলে শেখ ফরিদ উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, বৃহস্পতিবার সকালে হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে আমার বাবার এ সমস্যা দেখা দেয়। বিষয়টি রংপুর জেলা প্রশাসককে জানানো হয়েছে। আপাতত ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি। এখানকার পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্ট ঢাকায় পাঠানো হবে। সেখানকার চিকিৎসকরা রিপোর্ট দেখে ঢাকায় নিয়ে যেতে বললে তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান বলেন, ‘ওমর আলী শেখের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত এবং রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক এবং রোগীর স্বজনরা যদি ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

উল্লেখ্য গত বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ৩টার দিকে দুর্বৃত্তরা ঘোড়াঘাট উপজেলা পরিষদ চত্বরে ইউএনও ওয়াহিদা খানমের সরকারি বাসভবনে প্রবেশ করে। তারা ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে গুরুতর জখম করে।

পরে আহত বাবা-মেয়েকে প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদাকে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হয়। বর্তমানে ঢাকার আগারগাঁওয়ে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে বাবাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।