• আজ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সালমানের মৃত্যুর ২ যুগ, বিচারের দাবিতে ভক্তের একক প্রতিবাদ

১০:০২ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০ ঢাকা
salman

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকাঃ দুই যুগ আগে আজকের এই দিনে চির বিদায় নিয়ে চলে যান ঢাকাই ছবির স্বপ্নের নায়ক সালমান শাহ। প্রিয় এ নায়ক আত্মহত্যা করেছেন বিষয়টি একেবারেই মানতে নারাজ তার ভক্তরা। তাই সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার চেয়ে নানা সময় রাজপথে ভক্তদের মানবন্ধন করতে দেখা গেছে।

এর আগে শত শত মানুষ মানবন্ধন করলেও আজ দেখা গেল ভিন্ন চিত্র। মাসুদ রানা নকীব নামে এক অন্ধভক্ত সালমানের মৃত্যুর সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ পুনঃতদন্ত সাপেক্ষে সালমান শাহের অকাল মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উন্মোচনের জন্য সকাল ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ব্যানার, ফেস্টুন হাতে করে একা দাঁড়িয়েছিলেন।

নকীবের হাতে থাকা ফেস্টুনে লেখা, ‘সালমান হত্যার বিচার চাই’।

এ বিষয়ে নকীব বলেন, ২৪ বছর ধরেই সালমান শাহের অকাল প্রয়াণের আসল সত্য সামনে আসুক চাইছি। এ চাওয়ার বাস্তবায়নের লক্ষেই প্রথমে পরিকল্পনা ছিল সব ভক্তদের জানিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ ও দাবি উত্থাপন করবো। কিন্তু তবে করোনার কারণে এই পরিকল্পনা থেকে সরে এসেছি। টিম সালমান শাহ’র পক্ষ থেকে দাবী আদায়ের লক্ষে আমি একাই দাঁড়িয়েছি।

তিনি আরও বলেন, ‘সালমান শাহ’র মৃত্যুর কিছু দিন আগে এফডিসিতে নায়ককে দুই সপ্তাহের জন্য বয়কট করা হয়। একটি সংবাদের ভিত্তিতে তৎকালীন শিল্পী সমিতির সভাপতি আহমেদ শরীফ এটি করেন। নায়ককে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করতে নানা প্রেসার দেওয়া হয়। তার মৃত্যুর পর অনেক প্রযোজক-ব্যক্তি কোটিপতি হয়েছেন। সে সময়ে ঘটে যাওয়া এফডিসির প্রতিটি ঘটনা তদন্তের দাবি জানাই। এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এছাড়া নায়কের মৃত্যুর পূর্ণ তদন্তের ভার র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) দেওয়ার দাবি আমাদের।’

বর্তমানে তদন্তের ভার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কাছে আছে। গত ২৫ ফেব্রুয়ারিতে পিবিআই সদর দফতর থেকে সংবাদ সম্মেলন ডেকে সংস্থাটির মহাপরিচালক বনজ কুমার মজুমদার জানান, ‘তদন্তে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে সালমান শাহ খুন হননি; তার মৃত্যুর ঘটনাটি আত্মহত্যাজনিত!’

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর সিলেটের দাড়িয়াপাড়ায় অবস্থিত নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন সালমান শাহ। তাঁর পারিবারিক নাম শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন। বাবা কমর উদ্দিন চৌধুরী ও মা নীলা চৌধুরী। দুই ভাইয়ের মধ্যে সালমান বড় ছিলেন। ছোটবেলায় তিনি ছিলেন কণ্ঠশিল্পী। ইমন নামে অভিনয় জীবন শুরু হয় বিটিভিতে শিশুশিল্পী হিসেবে।

১৯৯৩ সোহানুর রহমান সোহানের হাত ধরে আসেন চলচ্চিত্রে। কেয়ামত থেকে কেয়ামত ছবিতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে তাঁর যাত্রা শুরু হয়। নিজের স্টাইল আর অভিনয় দিয়ে সালমান বদলে দিয়েছিলেন বাংলা ছবির প্রেক্ষাপট। ক্যারিয়ারের অল্প সময়ে ২৭টি ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। তার প্রায় প্রতিটি ছবি ছিল ব্যবসাসফল।

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ১১/বি, নিউ ইস্কাটন রোডের ইস্কাটন প্লাজার বাসার নিজ কক্ষে সালমান শাহ’র মরদেহ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। এরপর মেডিকেল রিপোর্টে এই মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলা হলেও তাঁর পরিবার ও ভক্তদের দাবি হত্যা করা হয়েছে সালমানকে। এই আলোচিত মৃত্যুর বিষয়টি এখনও বিচারাধীন অবস্থায় আছে।