পাবনায় স্মরণসভার নামে আ’লীগের নির্বাচনী শোডাউন: স্বাস্থ্যবিধি-আচরণবিধি উপেক্ষিত

১০:৪১ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, সেপ্টেম্বর ৭, ২০২০ দেশের খবর, রাজশাহী

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি- পাবনা-৪ আসনের প্রয়াত এমপি, সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর স্মরণে স্মরণসভা ও প্রতিনিধি সম্মেলনের নামে পাবনার আটঘরিয়ায় করোনায় স্বাস্থ্যবিধি এবং নির্বাচনী আচরণবিধি উপেক্ষা করে ব্যাপক নির্বাচনী শোডাউন করেছে আওয়ামী লীগ।

রোববার (০৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার উত্তরচক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা আওয়ামীলীগ এই স্মরণসভা ও প্রতিনিধি সম্মেলনের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিতে শত শত মোটরসাইকেল ও গাড়ি বহর নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে আসেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন। পাবনা সার্কিট হাউজ থেকে আটঘরিয়া পর্যন্ত বিশাল এই গাড়ি বহর আসার সময় ঈশ্বরদী-পাবনা মহাসড়কের টেবুনিয়া বাজার এলাকাসহ পথে পথে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়।

এদিকে অনুষ্ঠানের ব্যানারে স্মরণসভা লেখা থাকলেও মূলত বিশাল প্যান্ডেলে কয়েক হাজার দলীয় নেতা-কর্মীরা নির্বাচনী স্লোগান দেন। মঞ্চে বক্তারা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করার বিষয়ে বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আটঘরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আটঘরিয়া পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন। অনুষ্ঠানে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের দলীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।

স্মরণসভার নামে নির্বাচনী শোডাউন সম্পর্কে পাবনা জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার আব্দুল লতিফ শেখ বলেন, আমরা শোকসভার কথা শুনেছি, কিন্তু মঞ্চ-প্যান্ডেল খাটিয়ে ব্যাপক আয়োজন ও গাড়িবহর নিয়ে শোডাউন করার বিষয়ে বিধিনিষেধ করা হয়েছে, এ অনুষ্ঠান করে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করা হয়েছে।

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম পিপিএম, বিপিএম বলেন, আটঘরিয়ায় স্মরণসভার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এতবড় অনুষ্ঠানের কথা আমাদের জানা নাই।

আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান তানভীর ইসলাম বলেন, আমাদের প্রয়াত নেতা শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর স্মরণে স্মরণসভার আয়োজনে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দলীয় নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে অনুষ্ঠান স্থলে এসেছিল, আবেগের কারণে একটু বেশি জনসমাগম ঘটেছে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন এ বিষয়ে বলেন, আমি গাড়িবহর শোডাউন এসব পছন্দ করিনা, আমি স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলি, কিন্তু কর্মীরা এভাবে মিছিল ও শোডাউন করলে কী করবো? আমি ওদের নিষেধ করেছিলাম, বকাও দিয়েছিলাম। আমি বুঝতে পারিনি, আমাকে ভালবেসে তারা স্বাস্থ্যবিধি ও নির্বাচনী আচরণবিধি না মেনে এভাবে শোডাউন করবে, তবে তারা ঠিক করেনি।

উল্লেখ্য, আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পাবনা-০৪ (ঈস্বরদী-আটঘরিয়া) আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে রিটার্নিং অফিসার।