সংবাদ শিরোনাম

‘ভারতে যারাই ক্ষমতায় এসেছে, তারাই মুসলমানদেরকে শিক্ষা থেকে দূরে রেখেছে’দাপুটে জয়ে সিরিজ শুরু বাংলাদেশেরসাজার বদলে আদালত থেকে দেয়া হলো বই, ১০ শর্তে মুক্তি পেলো ৪৯ শিশুকুয়াকাটায় সৈকতে ডিগবাজি দিতে গিয়ে পর্যটকের মৃত্যুঠাকুরগাঁওয়ে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ডশাহজাদপুরে বসতবাড়িতে চোরাই তেলের অবৈধ গোডাউনে ভয়াবহ আগুন, ৩ জন দগ্ধটাঙ্গাইলে ৫ম শ্রেণির ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে যুবক গ্রেফতারযুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ পরশ করোনা আক্রান্তযশোরের শার্শায় অবৈধ ক্লিনিক সিলগালা, ১ লাখ টাকা জরিমানাসাড়ে ৮ মাসের মধ্যে দেশে করোনায় সর্বনিম্ন মৃত্যু

  • আজ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জনি হত্যা: এসআই জাহিদসহ পাঁচজনের মামলার রায় দুপুরে

◷ ১১:০৫ পূর্বাহ্ন ৷ বুধবার, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
119113496 746434029532483 7951488441399705142 n

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সাড়ে ছয় বছর আগে থানায় নিয়ে গাড়িচালক ইশতিয়াক হোসেন জনিকে পিটিয়ে হত্যার মামলায় পল্লবী থানার তৎকালীন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে করা মামলার রায় আজ (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টায় ঘোষণা করা হবে।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করবেন। এর আগে রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গত সোমবার ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশ এ মামলায় রায়ের এই দিন ঠিক করে দেন।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) তাপস কুমার পাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘এসআই জাহিদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে করা মামলার রায় বুধবার দুপুর ২টায় ঘোষণা করা হবে। এটি হবে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনের মামলার প্রথম রায়। রায়ে আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন প্রত্যাশা করছি।’

২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনে জনির মৃত্যুর পর ওই বছর অগাস্ট মাসে তার ভাই ইমতিয়াজ হোসেন রকি আদালতে এই মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- পল্লবী থানার তখনকার এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদ, এএসআই রাশেদুল ইসলাম, এএসআই কামরুজ্জামান মিন্টু, পুলিশের সোর্স সোর্স সুমন ও রাশেদ। তাদের মধ্যে এসআই জাহিদ ও সুমন কারাগারে আছেন। এএস আই রাশেদুল জামিনে রয়েছেন; বাকি দুজন জামিনে গিয়ে নিরুদ্দেশ হয়েছেন।

এ মামলার বিচারে রাষ্ট্রপক্ষে মোট ২৪ জন সাক্ষীর বক্তব্য শুনেছে আদালত। গত ৯ ফেব্রুয়ারি আসামিরা আত্মপক্ষ সমর্থন করে বক্তব্য দেওয়ার পর ১৯ ফেব্রুয়ারি যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়।

বাদীপক্ষে বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সাভির্সেস ট্রাস্টের (ব্লাস্ট) আইনজীবী আবু তৈয়ব মঙ্গলবার বলেন, “করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে মাঝপথে যুক্তিতর্ক থমকে ছিল। চলতি মাসে আদালতের নিয়মিত কার্যক্রম শুরু হলে সোমবার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়।”