বগুড়ায় জঙ্গলে ঢাকা মসজিদ নিয়ে জনমনে কৌতুহল

৬:০০ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০ তথ্য জাদুঘর, ফিচার

সাখাওয়াত হোসেন জুম্মা, বগুড়া প্রতিনিধি: প্রাচীন একটি মসজিদ নিয়ে বগুড়ার গাবতলীতে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। এই মসজিদকে কেন্দ্র করে নানা ধরনের অলৌকিক গল্প প্রচলিত রয়েছে।

স্থানীয়দের দাবি, এই মসজিদে জ্বীনেরা নামাজ আদায় করেন। বাঁশঝাড় ও জঙ্গলে ঢাকা পড়ে থাকা মসজিদটি সম্প্রতি জঙ্গল পরিস্কার করায় দৃশ্যমান হয়েছে। উক্ত মসজিদটি দেখার জন্য প্রতিদিনই আশেপাশের গ্রামের লোকজন সেখানে ভীড় করছেন। আর প্রত্নতত্ব বিভাগ জানেই না, সেখানে প্রাচীন আমলের একটি মসজিদ রয়েছে।

বগুড়া জেলার গাবতলী উপজেলার দুর্গাহাটা ইউনিয়নের সাইরপাড়া প্রামানিক বাড়ির পার্শ্বে এই মসজিদটির অবস্থান। নির্মাণ কাঠামো দেখে স্থানীয়দের ধারণা ৪০০ থেকে ৫০০ বছর আগে মসজিদটি নির্মিত। ১৬ ফুট দৈর্ঘ এবং ১৬ ফুট প্রস্থে নির্মিত মসজিদের উচ্চতা ১৮ ফুট। মসজিদে প্রবেশের জন্য পূর্বদিকে এবং বের হওয়ার জন্য উত্তর দিকে ৫ ফুট উচ্চতার দু’টি দরজা রয়েছে। ২০ ইঞ্চি প্রস্থে পাতলা পোড়া মাটির ইট এবং সুরকির গাঁথুনিতে নির্মাণ করা হয়েছে মসজিদটি। মসজিদটি নির্মাণে কোনো রড বা লোহা জাতীয় কিছু ব্যবহার করা হয়নি।

মসজিদের ভেতরে ঈমামসহ ১১ জনের নামাজ পড়ার মতো জায়গা রয়েছে। মসজিদের ভেতরে ছোট্ট একটি মেহরাব দেখা যায়। মসজিদের দেয়ালের চারপাশের কোণায় কারুকার্য চোখে পড়ছে এখনও। বাহিরের দেয়ালে পোড়া মাটির ইটগুলোর কিছু কিছু অংশ ক্ষয়ে গেলেও মসজিদের ভিতরে প্রবেশ করলে এখনও এর সৌন্দর্য জানান দেয়।

মসজিদের ভেতরে ওপরের দিকে গম্বুজের ইট ও দেয়াল এখনও চকচক করছে। যেন মাত্র কিছুদিন আগেই তৈরি করা হয়েছে। পাতলা আবরণের প্লাস্টার দেখা যায় মসজিদের দেয়ালের গোড়ার দিকে। তবে কোন সন, তারিখ বা কোন শাসকের আমলে এটি নির্মাণ হয়েছে তার কোনো নামফলক নেই। সরকারি খাস খতিয়ানে তিন শতাংশ জমিতে মসজিদ অবস্থিত। অযত্ন আর অবহেলায় মসজিদটির গায়ে ও গম্বুজে শ্যাওলা ও বিভিন্ন আগাছা জন্মেছে।

সরাইপাড়া গ্রামের ৮৩ বছর বয়সী বৃদ্ধ আব্দুল গনি প্রাং বলেন, তার দাদার আমল থেকে মসজিদটি এ রকম পরিত্যক্ত অবস্থায় দেখে আসছেন। কত বছর আগে কারা কীভাবে মসজিদটি নির্মাণ করেছেন এ বিষয়ে কেউ পরিস্কার কিছু বলতে পারেন না।

তবে একই গ্রামের আব্দুল হান্নান বলেন, এই এলাকায় এক সময় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বসবাস ছিল। মুঘল আমলে দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট এলাকা থেকে ১০-১৫ ঘর মুসলমান এখানে এসে বসতি স্থাপন করে। সে সময় জনসংখ্যা কম থাকায় ছোট আকারের এই মসজিদটি তখন নির্মাণ করা হয় বলে স্থানীয়দের ধারণা।

বর্তমানে জ্বী নের ভয়ে কেউ মসজিদে প্রবেশ করেন না। মসজিদ সংলগ্ন বাড়িতে বসবাস করেন আব্দুল বারী ভুলু। তিনি বলেন, প্রায় ২০ বছর আগে মসজিদ সংলগ্ন স্থানে টয়লেট নির্মাণ করায় জ্বীন তাকে টয়লেট সরিয়ে নিতে বলে। কিন্তু তিনি বিশ্বাস না করায় তার টয়লেটে দিনের বেলা আগুন জ্বলে উঠে। এতেও তিনি টয়লেট না সরালে তার বাড়িতেই দিন-দুপুরে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর থেকেই গ্রামের মানুষের বিশ্বাস, মসজিদে জ্বীন অবস্থান করে।

স্থানীয় কাজল প্রাং, আবদুল জলিলসহ অনেকেরই বিশ্বাস, জ্বীন মসজিদের ভেতরে অবস্থান করার কারণে মাঝে-মধ্যে কিছু অলৌকিক ঘটনা ঘটে। তারা বলেন, মসজিদের দেয়ালের সঙ্গে শাড়ি বা কাপড় শুকাতে দেওয়া হলে, অলৌকিকভাবে সেই শাড়ি বা কাপড় ছিড়ে টুকরো টুকরো হয়ে যায়। এভাবেই মানুষের মধ্যে জ্বীন আতংক থাকায় মসজিদটিতে কেউ প্রবেশ করে না। যে কারণে এতদিন জঙ্গলে ঢাকা পড়ে ছিল মসজিদটি।

সম্প্রতি গ্রামের লোকজন জঙ্গল কেটে পরিস্কার করায় মসজিদটি দৃশ্যমান হয়েছে। আর জ্বীনের মসজিদ হিসেবে প্রচার হওয়ায় প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকা থেকে দর্শনার্থীরা আসেন মসজিদটি দেখার জন্য।

তবে এই মসজিদ সর্ম্পকে কিছুই জানেন না প্রত্নতত্ব অধিদপ্তর বগুড়ার আঞ্চলিক পরিচালক নাহিদ সুলতানা। তিনি সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, সাইরপাড়া গ্রামে প্রাচীন আমলের মসজিদ আছে তা তার জানা নেই। তিনি বলেন, লোক পাঠিয়ে খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।