• আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘আমি স্কুলে যেতে চাই, আগের মতো বাঁচতে চাই’

১১:১২ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ খুলনা, দেশের খবর

জাহিদ হোসাইন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: মাত্র ১৩ বছর বয়সে বিছানায় শুয়ে যন্ত্রণায় ছটফট করছে তন্নি। এই বয়সেই তার শরীরে বাসা বেঁধেছে মরণঘাতি ক্যান্সার।

যশোরের বাঁগআচড়া সম্মিলিত গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ২০১৯ সালে সপ্তম শ্রেণীর পরীক্ষায় অংশগ্রহণের কথা ছিল সাদিয়া আফরিন তন্নির। কিন্তু বাঁ পায়ের হাড়ে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ায় এখন জীবন নিয়েই শঙ্কায় পড়েছেন তার পরিবার। সন্তানকে বাঁচাতে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তার বাবা তৌহিদুর রহমান ও মা রীনা খাতুন।

সাদিয়া আফরিন তন্নি সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের ঝাপাঘাট শেখ পাড়া গ্রামের তৌহীদুর রহমানের মেয়ে।

তন্নির মা রীনা খাতুন জানান, গত বছর স্কুল থেকে বাড়িতে ফিরে হঠাৎ বাঁ পায়ে ব্যাথা হয় তন্নির৷ পা ফুলতে থাকলে পরে তন্নিকে যশোর কুইন্স হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করানো হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে এক পর্যায়ে রাজধানীর আনোয়ারা মেডিকেল হাসপাতালে প্রাথমিক পরীক্ষার পরে সেখানকার চিকিৎসকরা জানান, ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছে আমার মেয়ে। এরপর ডাক্তারের পরামর্শে তন্নিকে ভর্তি করা হয় মহাখালী ক্যান্সার হাসপাতালে৷ বর্তমান সেখানে কর্টেস্ক সার্জারি বিভাগের ডা. সিরাজুস সালেহ’র অধীনে চিকিৎসাধীন আছে তন্নি। আমার মেয়ের অনেক আশা ছিল সে পড়ালেখা করে ডাক্তার হবে। তার আশা কি আর পূরণ হবে কোনদিনও!!

কাঁদতে কাঁদতে তন্নির মা আরো বলেন, ডাক্তার বলেছেন আমার মেয়ের অসুস্থতা এখন যে পর্যায়ে রয়েছে তা থেকে ভালো হওয়া সম্ভব। তাকে পুরোপুরি সুস্থ করতে পায়ে কস্টেক সার্জারি করাতে হবে। সার্জারির পরে ৮টি কেমোথেরাপি দিতে হবে। তাতে ১০ লাখ টাকা খরচ হবে। পরিবারে এ পর্যন্ত যা ছিল বিক্রি করে সকলের সহযোগিতায় মেয়ের কোন রকম ৬টি কেমোথেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করিয়েছি৷ দু’বেলা দুমুঠো খেয়ে এখন ভাড়াবাড়ীতে থাকি৷

বাঁগআচড়া সম্মিলিত গার্লস স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ শাহানারা খাতুন জানান, তন্নির বাবা পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী৷ এত টাকা তন্নির পরিবারের পক্ষে কোনোভাবেই ম্যানেজ করা সম্ভব নয়। সমাজের বিত্তবানরা যদি সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন তবে ক্যান্সার আক্রান্ত মেধাবী ছাত্রী তন্নিকে বাঁচানো সম্ভব।

মলিন কন্ঠে তন্নি জানান, আমি আবার আগের মত স্কুলের বন্ধুদের সাথে খেলতে চাই। স্কুলে যেতে চায়। আমি সুস্থ হতে চায়। আমি আগের মতো বাঁচতে চাই।

তন্নির জন্য তার বাবা তৌহীদুরের কাছে সরাসরি সহায়তা পাঠাতে পারেন সাতক্ষীরার কলারোয়া শাখা ইসলামী ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর: ৪১০০০২৩৬ এবং বিকাশ নম্বর: ০১৭৩৫০২০৮১৯।