• আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আলোচিত সেই জেমির বিরুদ্ধে শাহজাদপুরে প্রতারণার অভিযোগে মামলা

৯:৩৬ পূর্বাহ্ন | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০ রাজশাহী
jee

রাজিব আহমেদ রাসেল, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সময়ের আলো সমালোচিত কথিত মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী নবিয়া খাতুন ওরফে জেমি পারভিনের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে মামলা হয়েছে।

বুধবার জেমি পারভিনের আপন চাচাতো ভাই মোঃ মান্নান রতন বাদি হয়ে জেমি পারভিনকে একমাত্র আসামী করে শাহজাদপুর আমলী আদালতে এ মামলা দায়ের করেছেন।

বিচারক আবু খান শাহিন কনক প্রতারনার অভিযোগ আমলে গ্রহণ করে সমন ইস্যু করেছেন। আগামী ২৭ অক্টোবর আসামীক আদালতে হাজির হওয়ার আদেশ দিয়েছেন।

বাদী মোঃ আঃ মান্নান রতনের আইনজীবী এ্যাডভোকেট মোঃ আঃ আজিজ জেলহক এ তথ্য নিশ্চত করেছেন।

মামলা সুত্রে জানা গেছে জেমি পারভিন তার শাহজাদপুরের গারাদহ ইউনিয়নের বাজারঘাটি গ্রামের দুতলা বিল্ডিং সহ ৪ শতক বাড়ী বিক্রির জন্য ২ লাখ টাকা বায়না গ্রহন করে। ২৬ লাখ টাকা দাম নির্ধারন করে গত বছরের ২১ জানুয়ারি ২ লাখ টাকা গ্রহন করে তিনশত টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে বায়না নামা লিখে দেন। বহুদিন অতিবাহিত হলেও বাদিকে জায়গা লিখে দেয়নি বায়নার টাকাও ফেরত দেয়নি।

মামলার বাদী আঃ মান্নান রতন এই প্রতিবেদককে জানান, উল্লেখিত জায়গার বর্তমান বাজার মূল্য ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা হলেও জেমি খাতুন আমাদের কাছ থেকে বাজার দরের চেয়েও বেশি টাকা আদায় করার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সময় মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা দিয়ে হয়রানি করে। জেমি খাতুন বিভিন্ন সময় আমাদের হত্যার হুমকিও প্রদান করে।

উল্লেখ্য আলোচিত এই নারী জেমি খাতুন ওরফে নবীয়া খাতুন বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের ও মন্ত্রীদের সাথে ছবি তুলে ফেসবুকে দিয়ে নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর পালিত কন্যা ও আঃলীগের বড় নেত্রী হিসেবে দাবি করতো। এরই দাপটে শাহজাদপুর ও উল্লাপাড়ার মানুষদের ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে কোটি টাকার চাঁদাবাজি করে। এবং বিভিন্ন সময় ফেসবুক লাইভে এসে ভুক্তভোগী মানুষদের বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় করতো।

সম্প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমামের ছেলে উল্লাপাড়ার সাংসদ তানভীর ইমাম কে উদ্দেশ্য করে ফেসবুক লাইভে এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করে। এরই ফলশ্রুতিতে সাংসদ তানভীর ইমামের সাইবার ক্রাইম নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলায় গত ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকা থেকে ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে আলোচিত এই নারীকে গ্রেফতার করে।

জেমি খাতুনের গ্রেফতারের সংবাদে শাহজাদপুর ও উল্লাপাড়ার ভুক্তভোগী মানুষরা আনন্দ উল্লাস ও মিষ্টি বিতরণ করে। তারপর থেকে একে একে বেড়িয়ে আসতে শুরু করে সাধারণ মানুষের উপর জেমি খাতুনের নির্যাতনের চিত্র।