সংবাদ শিরোনাম
মানবদেহ সম্পর্কে কিছু বিস্ময়কর তথ্য যা অনেকেরই অজানা | রোহিঙ্গাদের ৩৪ কোটি ডলার সহায়তা দেবে যুক্তরাষ্ট্র ইইউ ও ব্রিটেন | ঢামেক হাসপাতালকে পাঁচ হাজার শয্যায় উন্নীত করা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী | ‘রোহিঙ্গাদের যত দ্রুত সম্ভব তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে’- পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী | নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ ধরায় ১৮ জেলের কারাদণ্ড! | দেশের মানুষের নিকট জাতীয় পার্টি ছাড়া বিকল্প কোনো পার্টি নেই: জিএম কাদের | বয়স চার হলেই স্কুলে যাবে শিশুরা, ২ বছরের প্রাক-প্রাথমিক | পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে বিক্ষুব্ধ সিলেটের টেলিভিশন সাংবাদিকরা | ‘আজারবাইজানের সহায়তায় সেনা পাঠাতে দ্বিধা করবে না তুরস্ক’ | ‘আসসালামু আলাইকুম’ ও ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলাকে জঙ্গিবাদের চর্চা বলায় লিগ্যাল নোটিশ |
  • আজ ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য এবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন মনোনীত

৫:৪৮ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নামের পর এবার নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাসের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে সিবিএস নিউজ।

পুতিন এমন সময় নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হলেন যখন তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিরোধী দলীয় নেতা অ্যালাক্সি নাভালনি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। ওই নেতার শরীরে বিষপ্রয়োগের ঘটনা ঘটে। যদিও এ ঘটনায় তার সম্পৃক্ততার বিষয়টি অস্বীকার করছেন পুতিন।

বিখ্যাত রুশ লেখক সের্গেই কোমকভের নেতৃত্বে লেখকদের একটি সংগঠন পুতিনের নাম মনোনীত করে নোবেল কমিটির কাছে বিবেচনার জন্য পাঠিয়েছে।

তাদের মতে, গোটা বিশ্ব শান্তি স্থাপনে ট্রাম্প এবং নেতানিয়াহুর তুলনায় অনেক বেশি উদ্যোগী ছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তাই তাকে যেন এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। এর আগে ২০১৩ সালেও নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

প্রসঙ্গত, নির্দিষ্ট কিছু শর্ত মানলে যেকোনও ব্যক্তি অন্য কাউকে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত করতে পারেন। আর তার নাম নোবেল কমিটির কাছে পাঠাতে পারেন। ইতিমধ্যে ২০২০ সালের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য ৩০০টি নাম মনোনিত হয়েছে।

আগামী ৯ অক্টোবর চলতি বছরের নোবেল প্রাপকদের নাম ঘোষণা করবে নোবেল কমিটি।

এই তালিকায় পুতিন ছাড়াও রয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নাম। সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরায়েলের মধ্যে দীর্ঘদিনের ঝগড়া মিটিয়ে চুক্তি করাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিলেন ট্রাম্প। সেজন্য মার্কিন প্রেসিডেন্টের নাম নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত করেন নরওয়ের সাংসদ ক্রিশ্চিয়ান টাইব্রিং জিজেডে।

এরপর সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের সঙ্গে চুক্তি করায় নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হন। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নাম মনোনীত করেন ইটালির নর্দান লিগ পার্টির সাংসদ পাওলো গ্রিমোলদি। এমনকি ঐতিহাসিক এই কাজের জন্য এবছর আমেরিকার রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু যৌথভাবে নোবেল শান্তি পুরস্কার পাবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি। নোবেল কমিটির কাছে জমা দেওয়া ইটালির সাংসদের প্রস্তাবে সমর্থন জানিয়েছেন ফিনল্যান্ডের এমপিরা।

শান্তিতে নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেলেন অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীরণের জন্য চুক্তি করায় তাকে এই মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এর আগে ইসরাইলের সঙ্গে আরব বিশ্বের সম্পর্ক উন্নয়নের সহযোগিতার জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মনোনয়ন দেয়া হয়।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ জানায়, মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজে ওই ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

গত বুধবার ইতালীয় সংসদ সদস্য ও অ্যান্টি মাইগ্রেন্ট লিগ পার্টির নেতা পাওলো গ্রিমোলদি এ বছর শান্তিতে নোবেল পুরস্কারের জন্য নেতানিয়াহুর নাম প্রস্তাব করেন।

ইসরাইলের সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী ও নেতানিয়াহুর লিকুড পার্টির নেতা আয়ুব কারা এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, সংস্থাটির প্রধান বাহরাইন ও আমিরাতের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করায় নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হন।