সংবাদ শিরোনাম
এবার পাকিস্তানের মানচিত্র থেকে কাশ্মীর বাদ দিলো সৌদি আরব | আবারও ফেসবুকে ‘ইসলামবিরোধী’ পোস্ট, সেই যুবকের রিমান্ড চায় পুলিশ | শরীয়তপু‌রে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত ১, আহত ২ | আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে শনিবার বসবে পদ্মা সেতুর ৩৫তম স্প্যান | তুরস্কে শক্তিশালী ভূমিকম্পে নিহত ৬, আহত দুই শতাধিক | ‘মানুষের মন থেকে পুলিশভীতি দূর করতে হবে’- রাষ্ট্রপতি | ফ্রান্স ইস্যুতে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করলেন ওজিল | যশোরে দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩ | নোয়াখালীর হাতিয়ায় বিধবাকে ধর্ষণ, কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টায় ৩ জন গ্রেফতার | বিশেষ প্রার্থনার মধ্য দিয়ে শেষ হলো শেরপুরের তীর্থ উৎসব |
  • আজ ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশকে ২০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ দেবে বিশ্বব্যাংক

৮:০১ অপরাহ্ন | শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ অর্থনীতি
bank

অর্থনীতি ডেস্কঃ বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশন সেবার প্রাপ্তি ও উন্নতিকল্পে এবং স্বাস্থ্যসম্মত অভ্যাস গড়ে তুলতে ২০০ মিলিয়ন ডলার অনুমোদন দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। শনিবার এ অনুমোদন দেয় সংস্থাটি।

এ অর্থ ‘বাংলাদেশ রুরাল ওয়াটার, স্যানিটেশন অ্যান্ড হাইজিন ফর হিউম্যান ক্যাপিটাল ডেভেলপমেন্ট প্রোজেক্ট’-এ ব্যয় করা হবে। এ প্রকল্প গ্রামীণ অঞ্চলে প্রায় ৬ লাখ মানুষকে নিরাপদ ও বিশুদ্ধ পানি পেতে সহায়তা করবে। এছাড়া এ প্রকল্প ৩.৬ মিলিয়নেরও বেশি গ্রামীণ মানুষকে উন্নত স্যানিটেশন সেবা সরবরাহ করবে।

ময়মনসিংহ, রংপুর, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ৭৮টি উপজেলার আওতাধীন এ প্রকল্প বাড়িতে ও পাবলিক প্লেসে পানি, স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্যকর সুবিধাগুলোর আরও ভালো প্রাপ্তি নিশ্চিত এবং জনগণকে যথাযথভাবে হাতধোয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে উদ্বুদ্ধ করার মধ্য দিয়ে রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করবে। একই সঙ্গে এটি কোভিড-১৯ মহামারিসহ সংক্রামক রোগের প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষা করবে।

বাজার, বাস স্টেশন ও কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোর মতো জনাকীর্ণ পাবলিক স্পেসগুলোতে প্রকল্পের আওতায় ২ হাজার ৫১৪টি হাতধোয়ার স্টেশন করবে। যাতে পানি, নিষ্কাশন ও স্যানিটেশন সুবিধার পাশাপাশি ওভারহেড ট্যাঙ্ক ও সাবানের ব্যবস্থা থাকবে।

বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ ও ভূটানের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন বলেন, ‘সবার জন্য নিরাপদ পানি সরবরাহ এবং খোলা জায়গায় মলমূত্রত্যাগ বন্ধে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য উন্নতি করেছে। কিন্তু এখনো সুপেয় পানি ও স্যানিটেশনের মান, নিরাপদ পানির নিশ্চয়তা ও মানব উন্নয়নের বিষয়টি এখনো চ্যালেঞ্জিং।

তিনি আরো বলেন, ‘এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলে ডায়রিয়ার মতো রোগের বিস্তার রোধ, পুষ্টি পরিস্থিতির উন্নতি, বিশেষ করে ঝুঁকিতে থাকা জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে সহায়ক হবে। এর ফলে দারিদ্র নিরসন ও অর্থনৈতিক অগ্রগতি তরান্বিত হবে।’

বিশ্বব্যাংকের জ্যেষ্ঠ পানি গবেষক এবং এই প্রকল্পের দলনেতা রোকেয়া আহমেদ বলেন, ‘বিশ্বের সবচেয়ে জলবায়ু ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। চরম বিরূপ আবহাওয়া ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশুদ্ধ খাবার পানির মান ও সহজপ্রাপ্যতা কমছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে জলবায়ু সহনীয় পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা তৈরি করা যাবে এবং ভূপৃষ্ঠ ও ভূতলের পানির দূষণ রোধ ও সঠিক ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন করা সম্ভব হবে।’