সংবাদ শিরোনাম

ভ্যাকসিন নিরাপদ, অযথা ভয় পাবেন না: নরেন্দ্র মোদিসরাসরি সাক্ষাৎ করতে চান ট্রুডো ও বাইডেন, বৈঠক আগামী মাসেআজ আমার আনন্দের দিন: প্রধানমন্ত্রীরাজশাহীতে স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে পালিয়েছে স্ত্রীকোম্পানীগঞ্জে রোববার আধাবেলা হরতালের ডাক দিলেন কাদের মির্জা৭০ হাজার গৃহহীন পরিবারকে পাকা ঘর উপহার দিলেন প্রধানমন্ত্রীএকরামুলের বহিষ্কার দাবিতে কাদের মির্জার অবস্থান কর্মসূচী অব্যাহতউখিয়ায় সংবাদকর্মীকে ফের অপহরণ করে হত্যা চেষ্টা, অবস্থা সংকটাপন্নসুনামগঞ্জে রেস্তোরাঁ থেকে কর্মচারীর লাশ উদ্ধারফটিকছড়িতে ‘মেহেদি হাসান বিপ্লব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট’ উপলক্ষে মতবিনিময় সভা

  • আজ ৯ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতের ভ্যাকসিন সমগ্র মানবজাতির কল্যাণে ব্যয় করা হবে: মোদি

◷ ১২:০৩ পূর্বাহ্ন ৷ রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক
PMMODI

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ “ভারতের ভ্যাকসিন সমগ্র মানবজাতির কল্যাণে ব্যয় করা হবে” বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘে দেওয়া ভার্চুয়াল ভাষণে তিনি এ কথা বলেন। তবে ভাষণে চীনের সঙ্গে সীমান্ত সংঘাত নিয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করেননি।

মোদি বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী দেশ হিসেবে ভারতের ভ্যাকসিন তৈরি এবং সরবরাহের সক্ষমতা বর্তমান সংকট মোকাবিলায় সমগ্র মানবজাতির সহায়তায় কাজে লাগানো হবে। ভ্যাকসিন সরবাহের পর সংরক্ষণের জন্য যেসব দেশের পর্যাস্ত সুবিধা নেই, তাদের সক্ষমতা বাড়াতেও সহায়তা করা হবে বলে জানান মোদি।

শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে ভাষণে জোর দিয়ে বলেন, যে দেশ করোনা ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারবে তাদের উচিৎ তা সবার জন্য নিশ্চিত করা। সবার জন্য করোনা ভ্যাকসিন নিশ্চিতের কাজ সমন্বয় করার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র বাধা দিচ্ছে-এমন প্রেক্ষাপটে সবার জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিতের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেন স্কট মরিসন। বলেন, সবার জন্য বিস্তৃত পরিসরে ভ্যাকসিন নিশ্চিত করা বৈশ্বিক এবং নৈতিক দায়িত্ব।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দখলকৃত কাশ্মীর এবং হিন্দু জাতীয়তাবাদ নিয়ে মোদি সরকারের তীব্র সমালোচনা করলেও স্পষ্টভাবে ইসলামাবাদকে কিছু্‌ই বলেননি ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

তবে তিনি জাতিসংঘের সংস্কার এবং বিশ্বের দ্বিতীয় জনবহুল দেশ হিসেবে বিশ্ব সংস্থায় ভারতকে আরো ক্ষমতা দেয়ার জন্য ভাষণে আহ্বান জানান।

মোদি বলেন, গেল আট নয় মাস ধরে পুরো বিশ্ব করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় লড়াই করছে। মহামারির বিরুদ্ধে যৌথ লড়াইয়ে কোথায় জাতিসংঘ? কোথায় তাদের কার্যকরি পদক্ষেপ?

ভারতের ১৩০ কোটি মানুষ দীর্ঘদিন ধরে জাতিসংঘের সংস্কারের জন্য অপেক্ষা করছে বলে জানান নরেন্দ্র মোদি।

‘আজ ভারতের জনগণ উদ্বিগ্ন যে জাতিসংঘের যৌক্তিক সংস্কার আদৌ হবে কী না? আর কতোদিন ভারতকে জাতিসংঘের সিদ্ধান্ত নেয়ার কাঠামো থেকে বাইরে রাখা হবে? প্রশ্ন রাখেন মোদি।

সম্প্রতি ভারতের সঙ্গে নরওয়ে, আয়ারল্যান্ড এবং মেক্সিকো দু’বছরের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছে। ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে তাদের কার্যকাল শুরু হবে।