সংবাদ শিরোনাম
মহানবীকে অবমাননা: ম্যাক্রনের সমর্থনে ভারতজুড়ে হ্যাশট্যাগ | বাবা মারা যাওয়ার ২১ দিনের মাথায় সড়ক দুর্ঘটনায় ছেলের মৃত্যু | কত ম্যাক্রোঁ আসলো গেল, ইসলাম সর্ব শ্রেষ্ঠ ধর্ম থেকেই গেল: পার্থ | কুষ্টিয়ায় বিষাক্ত মদপানে তিন যুবকের মৃত্যু | হাজী সেলিমের দখলে থাকা অগ্রণী ব্যাংকের জমি উদ্ধার | করোনাকালেও প্রমাণিত হলো আমরা বীরের জাতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী | সীমান্তের এই মসজিদে একসঙ্গে নামাজ আদায় করেন বাংলাদেশ-ভারতের মানুষ | ফ্রান্সের হয়ে না খেলার খবরকে মিথ্যা বললেন পগবা | উলিপুর পৌর মেয়রের বাসভবন থেকে পরিচ্ছন্নতাকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার | হাতীবান্ধায় যুবদলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত |
  • আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে মর্গে নানা জটিলতায় বাড়ছে দূর্ভোগ

৬:০৬ অপরাহ্ন | শনিবার, অক্টোবর ৩, ২০২০ সিলেট
Habiganj

মঈনুল হাসান রতন, হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ময়নাতদন্তের দীর্ঘ সূত্রিতায় জনদুর্ভোগ বেড়েই চলেছে। মরদেহের আত্মীয় স্বজনদের পাশাপাশি পুলিশরাও ভোগান্তিতে পড়ছেন। একদিন আগে লাশ উদ্ধার হলেও নির্দিষ্ট সময়ে চিকিৎসক না থাকায় কোনো কোনো সময় দুই ২/৩ দিন সময় অতিবাহিত হচ্ছে ময়নাতদন্ত করতে। ফলে মরদেহগুলো পঁচে যাচ্ছে।

এ নিয়ে ক্ষোভের যেনো শেষ নেই। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে শায়েস্তাগঞ্জ থানা পুলিশ এক নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ওইদিনই হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এ খবর পাওয়া মাত্র হাসপাতালের বেসরকারি ডোম জিতু মিয়া ছুটে এসে সংরক্ষণ করলেও চিকিৎসক না আসায় ময়নাতদন্ত হয়নি। ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক প্রাইভেট প্র্যাকটিসে ব্যস্ত থাকায় সময় মতো ময়নাতদন্ত হয় না বলে অভিযোগ উঠেছে। পরে গতকাল শুক্রবার বিকেলে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়।

৯ উপজেলার লোকজনকে ময়নাতদন্তের জন্য একমাত্র সদর হাসপাতালে প্রতিনিয়ত ছুটে আসতে হয়। সাধারণত কোন মৃত্যুকে অস্বাভাবিক মনে করা হলে বা অভিযোগ থাকলেই পুলিশ প্রথমে সহকারী সাব-ইন্সপেক্টর হতে ক্রম মর্যাদাসম্পন্ন এমন একজনকে ঘটনাস্থলে প্রেরণ করেন। যিনি লাশ সম্পর্কে খবর সংগ্রহ করে লাশ মর্গে পাঠিয়ে দেয়। এ ছাড়া হাসপাতালে পুলিশ মামলাভুক্ত যেমন সড়ক দুর্ঘটনা, খুন, আত্মহত্যা এ জাতীয় মৃত্যুর ঘটনায় লাশের ময়নাতদন্ত করতে হয়।

দূর-দূরান্ত থেকে নিহতের আত্মীয়স্বজনকে এসময়ে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ধরনা দিয়ে বসে থাকতে হয়। দূরত্ব যতই হোক অফিস সময়ে বিকাল ৫টার মধ্যে লাশ হাসপাতালের মর্গে পৌঁছতে না পারলে পরদিন অফিস সময়ের জন্য আবার অপেক্ষা করতে হয়। অনেক সময় গ্রাম থেকে থানা, থানা থেকে জেলা সদরে হাসপাতাল মর্গে এবং অফিস সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে করতে দু’দিনও লেগে যায়। আর এ কারণে পুলিশসহ মরদেহের সাথে আসা স্বজনরা পড়েন বিপাকে ও দূর্ভোগে।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, মানবিক কারণে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ময়নাতদন্ত করে লাশ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা প্রয়োজন। হবিগঞ্জে দুইজন আরএমও এবং দুইজন ডাক্তার ময়ানতদন্তের জন্য সংরক্ষিত রয়েছেন। তাদের মধ্যে হচ্ছেন ডাক্তার শামীম আরা, ডাক্তার এমএ মুমিনসহ আরও দুইজন। অনেক সময় চিকিৎসার কাজে ব্যস্ত থাকায় তারা সময়মতো এ কাজটি করতে পারেন না। লাশ আসার পর যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ময়নাতদন্ত করে দেয়া হয় সে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

jahir এমপি আবু জাহির করোনায় আক্রান্ত

মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৭, ২০২০