সংবাদ শিরোনাম
আড়াইহাজারে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনের ঘোষণাসহ চার দফা দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল | টাঙ্গাইলে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ২ | ফরিদগঞ্জে অবৈধ ড্রেজিং করে বালু উত্তোলন চলছেই, নিরব ভূমিকায় প্রশাসন | সিলেটে ডাক্তার দম্পতির বাসা থেকে তরুণীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার | কিশোরগঞ্জে আইপিএল নিয়ে জুয়ার আড্ডায় অভিযান, ১৩ জনের জেল-জরিমানা | নিষ্ঠুর পিতার বিকৃত রুচি! নিজ মেয়েকে ধর্ষণের মামলায় পিতা কারাগারে | পুলিশ ও জনগণের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি করতে হবে: জিএমপি কমিশনার | মির্জাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু | বাড়ছে ডেঙ্গু, ৩৭ রোগী হাসপাতালে ভর্তি | যমুনা নদী সুরক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবিতে নাগরপুরে মানববন্ধন |
  • আজ

ধর্ষণের বিচার চেয়ে ছাত্রলীগের আলোক প্রজ্জ্বালন

12:16 পূর্বাহ্ন | বুধবার, অক্টোবর 7th, 2020 শিক্ষাঙ্গন

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকাঃ দেশের বিভিন্ন স্থানে ধর্ষণ ও নারীর প্রতি সহিংসতার প্রতিবাদে ও এর স্থায়ী অবসানের দাবিতে আলোক প্রজ্জ্বালন কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রলীগ। মঙ্গলবার (০৬ অক্টোবর) রাতে ঢাবির রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

এতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, ঢাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে সংগঠনের নেতা-কর্মীরা অংশ নেন।

এ সময় আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, সকল ধর্ষককে দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হোক। যারা ধর্ষক বা এর সাথে যারা সংশ্লিষ্ট তাদের যেন দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করা হয়। এর ফলে যারা এই ধরনের মনমানসিকতা লালন করে তারা ভয় পাবে। একইসাথে ধর্ষককে যাতে সমাজের নিকৃষ্ট প্রাণী হিসেবে চিহ্নিত করতে পারি। পারিবারিকভাবে হোক বা সামাজিকভাবে হোক আমরা যাতে বয়কট করতে পারি। তাহলে তারা ভয় পাবে।

তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বারবার আমাদের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছি, আমাদের শিক্ষার্থী বোনরা বা মা-বোনেরা যদি কোনোভাবে রাস্তায় তথাকথিত দুষ্টু, যারা ইভটিজিং করে তাহলে তারা যেন আমাদের জানায়। আমরা সেই ধর্ষক বা ইভটিজারদের ধরে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে তুলে দেব।

লেখক ভট্টাচার্য বলেন, আজকে আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে প্রোগ্রামটি পালন করছি। আগামীকাল সারা দেশে ছাত্রলীগের সকল ইউনিট সচেতনতামূলক কর্মসূচি পালন করবে। আমার বিশ্বাস করি, শুধুমাত্র কারো উপর দায় বা ধর্ষণকার্য যখন রাজনৈতিক প্রলেপ দেওয়া হয়, তখন কিন্তু ধর্ষকের কাছ থেকে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি অন্যদিকে চলে যায়, ফলে সেই ধর্ষকের বিচার হয় না। কিছুদিন পর মানুষ তা ভুলে যায়। সুতরাং ধর্ষণকে প্রতিরোধ করতে হলে আমাদের নৈতিক পরিবর্তন আনতে হবে। মানুষকে সামাজিকভাবে সচেতন করতে হবে। যারা লাঞ্ছিত হচ্ছেন তাদের পক্ষে দাঁড়াতে হবে এবং খুবই দ্রুত সময়ে অপরাধীদের ধরার ব্যবস্থা করতে পারি সেভাইে আমরা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছি।

তিনি বলেন, সংগঠনের বাইরে গিয়ে যারা ব্যক্তিগত উদ্যোগে সংগঠনের বিপক্ষে যারা কাজ করছে, তাদেরকে আমাদের সংগঠনের হিসেবে প্রচার করা, আমি মনে করি, এটা সংগঠনের উপরে একটা দায় বর্তানোর মনোভাব। আপনারা জানেন কিছুদিন আগে আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীটি ধর্ষিত হয়েছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতে মেয়েটি মামলা করলে তারা মিছিল বের করেছে। ছাত্র অধিকার পরিষদের শীর্ষ নেতা তাকে ধর্ষণ করেছে। সেই সংগঠন ধর্ষকের পক্ষে দাঁড়িয়েছে। আমরা কিন্তু কোনো ধর্ষকের পক্ষে দাঁড়াচ্ছি না। যেই ধর্ষণ করুক, যেই অপরাধ করুক আমরা তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াচ্ছি। সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিচ্ছি। বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলাবাহিনীও তাদের বিরুদ্ধে সঠিক ব্যবস্থা নিচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশ থেকে সন্ধ্যার দিকে কর্মসূচি শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়।

আবারো বাড়ল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি!

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 29th, 2020