সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মিরপুরে বেদখল সরকারি খাল উদ্ধারে ডিএনসিসির অভিযান

৫:৩৭ অপরাহ্ন | বুধবার, অক্টোবর ৭, ২০২০ ঢাকা

রাজু আহমেদ, স্টাফ রিপোর্টার : জলাবদ্ধতা নিরসনে রাজধানীর মিরপুরে বেদখলকৃত সরকারী খাল উদ্ধারে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলামের নেতৃত্বে এক বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। ৭ অক্টোবর (বুধবার) সকাল এগারোটা থেকে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এসময় মেয়র আতিকুল ইসলাম মিরপুুর -১ নম্বরের দক্ষিন বিশিলের গোদাখালি খালের কিছু অংশ নিজ হাতে পরিস্কারের মাধ্যমে অভিযান শুরু করেন।

এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, রাজধানীর জলাবদ্ধতা ও পয়ঃনিষ্কাশনের একমাত্র ভরসা সরকারী খালগুলো। যেগুলোর মাধ্যমে রাজধানীতে বৃষ্টির পানি বিভিন্ন নদীতে চলে যায়। কিন্ত কিছু প্রভাবশালীদের দ্বারা বেদখল,অসচেতনতার বশতঃ বিভিন্ন ভাবে ব্যবহৃত নানা প্রকার প্লাস্টিকের বোতল ও আবর্জনা, বাসা বাড়ির ময়লা আবর্জনা সিটি কর্পোরেশনের নিয়ম না মেনে এসকল খালে ফেলা হয়েছে। যার ফলে খালের বিভিন্ন জায়গায় ভরাট হয়ে যাওয়ায় সামান্য বৃষ্টির পানিতেও জলাবদ্ধতা নিরসনে বাধা সৃষ্টি করছে।

এসময় মেয়র আরো বলেন, আমি বিভিন্ন বাসাবাড়িতে গিয়েছি-তাদরকে হাতজোড় করে বলেছি,এসকল সমস্যা নিরসনে আন্তরিকতার সাথে আমাকে সহায়তা করুন। সচেতন হউন। ময়লা-আবর্জনা,অপচনশীল দ্রব্যাদি খালে না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলুন। সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীগণ সময়মত সেগুলো নিয়ে এসটিএসে ফেলবে। জলাবদ্ধতা আমার আপনার একার সমস্যা নয়। সামান্য বৃষ্টিতে রাজধানীতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হলে দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন লাখো মানুষ। যার যার স্থান থেকে সবাই সচেতন হলে এসমস্যা নিরসন সহজ হবে।

খাল দখল করে স্থায়ী / অস্থায়ী স্থাপনা নির্মাণকারীদের উদ্দেশ্য করে মেয়র আরো বলেন, খাল দখল করে যারা স্থায়ী বা অস্থায়ী বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করেছেন সেগুলো দ্রুত সময়ের মধ্যে অপসারণ করুন। অন্যথায় ডিএনসিসির পক্ষ থেকে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এসময় ডিএনসিসির ০৮-নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আবুল কাশেম মোল্লা, ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ মুরাদ হোসেন, ০৭- নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর তোফাজ্জল হোসেন টেনু, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর শামসুন্নাহার লাভলী ও কাউন্সিলর শিখা চক্রবর্তীসহ এলাকার বিপুল সংখ্যক জনতা উপস্থিত ছিলেন।