🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বৃহস্পতিবার, ৩ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ১৭ জুন, ২০২১ ৷

‘শেকল ভাঙার পদযাত্রা’

nari
❏ বুধবার, অক্টোবর ১৪, ২০২০ প্রজন্মের ভাবনা

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে জেগে উঠেছে পুরো বাংলাদেশ। দলমত-নির্বিশেষে তারকারাও উঠে এসেছে এ আন্দোলনে। তবে এই আন্দোলনের প্রধান কেন্দ্রে আছে সব স্তরের তরুণ শিক্ষার্থীরা। এই শিক্ষার্থীদের তেমনি একটি আন্দোলন হলো ‘শেকল ভাঙার পদযাত্রা’।

ধর্ষণ-যৌন সহিংসতার সঙ্গে যুক্তদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে দৃষ্টান্তমূলক ও ন্যায্য শাস্তি নিশ্চিতসহ ১২ দফা দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ থেকে মানিকমিয়া এভিনিউ পর্যন্ত ‘শেকল ভাঙার পদযাত্রা’ কর্মসূচী শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) রাত ১১.৫৯ মিনিট থেকে এ কর্মসূচী শুরু হয়ে চলবে ভোর চারটা পর্যন্ত। পদযাত্রাটি শাহবাগ থেকে সিটি কলেজ, কলাবাগান হয়ে মানিকমিয়া এভিনিউয়ে পৌঁছাবে। এরপর সেখানে সমাবেশ এবং প্রতিবাদী অবস্থান কর্মসূচী পালন করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী শিক্ষার্থীদের অন্যতম দাবিগুলো হচ্ছে, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার মানদণ্ডের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আইন ও সামাজিকভাবে ধর্ষণের সংজ্ঞায়ন সংস্কার করতে হবে; পাহাড় ও সমতলের সকল নারীদের ওপর সকল প্রকার যৌন এবং সামাজিক নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে; প্রাথমিক লেভেল থেকেই পাঠ্যপুস্তকে যৌন শিক্ষা (গুড টাচ ব্যাড টাচের শিক্ষা, সম্মতি বা কন্সেন্ট এর গুরুত্ব, প্রাইভেট পার্টস সম্পর্কে অবহিত করা) যোগ করতে হবে; ধর্ষণ মামলার ক্ষেত্রে সাক্ষ্য আইন, ১৮৭২ এর ১৫৫(৪) ধারা বিলোপ করতে হবে এবং মামলার ডিএনএ আইনকে সাক্ষ্য প্রমাণের ক্ষেত্রে কার্যকর করতে হবে।

এছাড়া মাদ্রাসার শিশুসহ সকল শিশুর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং কোনো শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হলে ৯০ দিনের মাঝে দ্রুততম ট্রাইব্যুনালে অভিযোগের সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করা; জাতীয় শিক্ষাক্রম অনুমোদিত পাঠ্যপুস্তকে নারী অবমাননাকর বার্তা প্রকাশ ও প্রচার করা নিষিদ্ধ; ধর্মীয় বক্তব্যের নামে অনলাইনে ও অফলাইনে নারী অবমাননাকর বক্তব্য প্রচার বন্ধ; যৌন সহিংসতা প্রতিরোধে প্রান্তিক অঞ্চলের নারীদের সুবিধার্থে হটলাইনের ব্যবস্থা চালু করাসহ বিভিন্ন দাবি।

মিছিলে অংশ নেওয়া এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘সন্ধ্যায় কিংবা দিনে কোনো মেয়ে বাইরে বের হয়ে নিপীড়নের শিকার হলে তখন একটা অযুহাত ওঠে যে সে কেন সন্ধ্যায় বের হয়েছে। তাকে দোষারোপ করা হয় যে তার চরিত্রে সমস্যা। অলিখিতভাবে মেয়েদের রাতে বের হওয়াটা যেন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু দিনেও মানুষের কাজ থাকতে পারে, রাতেও কাজ থাকতে পারে। এই যে মেয়েদের রাতে বের হওয়ার ওপর অলিখিত নিষেধাজ্ঞা তার বিরোধ করতেই আমরা রাতে মিছিল করেছি।’

আরেক আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী বলেন, ‘এই সমাজে বারবার নারীদের নিষ্পেষিত করা হয়। আর বাধ্য হয়ে নারীদের ঘরে থাকা নয়, পুরুষতান্ত্রিকতার বেড়াজালে আটকে থাকা নয়। ধর্ম-বর্ণ-রাজনৈতিক মতাদর্শ নির্বিশেষে শুধুমাত্র লৈঙ্গিক পরিচয় ‘নারী’ হওয়ার কারণে যে জুলুম-অত্যাচার-বৈষম্য সহ্য করতে হয় প্রতিনিয়ত, তার বিরুদ্ধে আমাদের এই পদযাত্রা। দেশের ঘুমন্ত বিচারব্যবস্থাকে জাগাতে আমাদের শেকল ভাঙার পদযাত্রা।’

আন্দোলনকারীরা মিছিলে ‘দিনে হোক রাতে হোক, সামলিয়ে রাখো চোখ’, ‘আমি নির্দোষ আমি নারী, আসল দোষী ধর্ষণকারী’ স্লোগান দেন।