🕓 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ বৃহস্পতিবার, ৩ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ১৭ জুন, ২০২১ ৷

মামলা পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ, নুরের দুঃখ প্রকাশ


❏ বুধবার, অক্টোবর ১৪, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- ডাকসুর সদ্য সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) আগামী ২৯ নভেম্বরের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১৪ অক্টোবর) বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন এ আদেশ দেন।

এর আগে ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রী, যিনি নুরদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা দুটি করেছিলেন।

জানা যায়, ধর্ষণের অভিযোগ করে ওই নারী নুরের কাছে বিচার চাইলে তিনি মোবাইলে তাকে হুমকি দেন। এছাড়া ফেসবুক লাইভে চরিত্রহীন বলে প্রচার চালান। তাই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫, ২৯ ও ৩১ ধারায় নুরের বিরুদ্ধে মামলা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নুর আজ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ধর্ষণ মামলায় ওই ছাত্রী আমাকে একেবারেই ভিত্তিহীনভাবে জড়িয়েছেন। এটি একটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা।’

ওই ঢাবি ছাত্রীকে নিয়ে সম্প্রতি করা তার মন্তব্য নিয়ে নুর বলেন, ‘সম্প্রতি আমার সংগঠনের পাঁচজনকে তুলে নিয়ে যায় ডিবি পুলিশ, কিন্তু স্বীকার করেনি। এতে আমি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলাম। তাই লাইভে এসে ক্ষোভ প্রকাশ করেছি, কিন্তু ওই ছাত্রীর চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুলতে চাইনি।’

নুরের বিরুদ্ধে ঢাবি ছাত্রীর চরিত্রহননের লক্ষ্যে অশোভন ভাষা ব্যবহারের যে অভিযোগ আনা হয়েছে সে বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি বলতে চেয়েছি তিনি “দুশ্চরিত্রাহীন”, তিনি “দুশ্চরিত্র” নয়।’

নুর বলেন, ‘তিনি (ছাত্রী) প্রকৃতপক্ষে ধর্ষণের শিকার হয়ে থাকলে, তার বিচার চাইতে পারেন। এর বিচার আমরাও চাই। আমরা তার পাশে আছি।’ তিনি বলেন, ‘আমার কথায় তিনি যদি দুঃখ পেয়ে থাকেন, তাহলে আমিও তার কাছে দুঃখপ্রকাশ করছি।’

ভিপি নুর আরও বলেন, ‘তবে ধর্ষণের সহযোগী, অপহরণকারী উল্লেখ করে তিনি আমাদের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা করে যাচ্ছেন, এতে আমরাও তো সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হচ্ছি, তিনি নিজেই তো আমাদের ‘দুশ্চরিত্র’ হিসেবে উপস্থাপন করছেন। এগুলো কি অপরাধ নয়?’