যু্দ্ধের জন্য সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিলেন চীনা প্রেসিডেন্ট!

১১:০৯ অপরাহ্ণ | বুধবার, অক্টোবর ১৪, ২০২০ আন্তর্জাতিক
cha

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতের সঙ্গে সীমান্ত বিবাদের মধ্যেই দেশের সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিলেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং৷ একই সঙ্গে সেনাবাহিনীকে দেশের প্রতি বিশ্বস্ত থাকারও আবেদন জানিয়েছেন তিনি৷ চীনা সংবাদসংস্থা জিনহুয়াকে উদ্ধৃত করে সিএনএন-এর একটি রিপোর্টে এমনই দাবি করা হয়েছে৷

সিএনএন-এ প্রকাশিত রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, মঙ্গলবার চীনের গুয়াংডং-এ একটি সেনা ঘাঁটিতে যান প্রেসিডেন্ট জিনপিং৷ রিপোর্ট অনুযায়ী, সেখানেই প্রেসিডেন্ট জিনপিং বাহিনীর সদস্যদের নিজেদের যাবতীয় শক্তি যুদ্ধের জন্য সঞ্চয় করে রাখার পরামর্শ দেন এবং মানসিক ভাবে প্রস্তুত থাকতেও বলেন৷ পাশাপাশি বাহিনীকে চূড়ান্ত সতর্ক থাকার নির্দেশও দিয়েছেন চীনা প্রেসিডেন্ট৷

তবে ভারতের সঙ্গে যুদ্ধে যাওয়ার ইঙ্গিত দিয়েই চীনা প্রেসিডেন্ট এ মন্তব্য করেছেন, আমেরিকাসহ দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে যে দেশগুলোর সঙ্গে চীনের বিবাদ নাকি তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে চাইছেন চীনা প্রেসিডেন্ট, তা এখনও স্পষ্ট নয়। দু’ তরফেই একযোগে যুদ্ধের প্রস্তুতি চীন নিতে পারে, এমন সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

পিপলস লিবারেশন আর্মির মেরিন কর্পসদের উদ্দেশ করে নিজের বক্তব্যে চীনা প্রেসিডেন্ট বাহিনীকে নির্ভরযোগ্য, বিশ্বস্ত থাকার পরামর্শ দেন। সংবাদ সংস্থা জিনহুয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী, বাহিনীর সক্ষমতা চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া, সামরিক পরিকাঠামো বৃদ্ধি করার পাশাপাশি একযোগে একাধিক ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার মতো দক্ষতা যাতে বাহিনীর থাকে, সেই পরামর্শও দিয়েছেন জিনপিং।

একই সঙ্গে চীনা প্রেসিডেন্ট স্পষ্ট করে দিয়েছেন, দেশের সামরিক বাহিনীর বিষয়ে চীনের কমিউনিস্ট পার্টিই শেষ কথা বলবে। এর পাশাপাশি দল এবং সামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে যাতে কোনও ফাঁক না থাকে, সে বিষয়েও জোর দেন চীনা প্রেসিডেন্ট।

সিএনএন অনলাইন প্রতিবেদনে লিখেছে, শি জিনপিং এমন সময়ে এই সামরিক সফর করলেন যখন চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে কয়েক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ উত্তেজনা চলছে। এ ছাড়া তাইওয়ান এবং করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ে দ্বিমত পোষণ করে ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের মধ্যে তীব্র এই বিভেদ দিন দিন বাড়ছেই।

তাইওয়ানের কাছে তিনটি অত্যাধুনিক অস্ত্রব্যবস্থা বিক্রির পরিকল্পনার কথা সোমবার মার্কিন কংগ্রেসকে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। এর মধ্যে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন আর্টিলারি রকেট সিস্টেমও (হিমারস) রয়েছে।

তীব্র প্রতিক্রিয়ায় চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান তাইওয়ানের কাছে অস্ত্র বিক্রির পরিকল্পনা অবিলম্বে বাতিল ও সমস্ত মার্কিন-তাইওয়ান সামরিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে ওয়াশিংটনের প্রতি আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য তাইওয়ান কখনো চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত না হলেও বেইজিং স্ব-শাসিত এই দ্বীপটিকে তাদের ভূখণ্ডের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে দাবি করে এবং শি সামরিক হস্তক্ষেপ করার হুমকিও দিয়েছেন।