সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে ঢাকা থেকে নোয়াখালীর পথে লংমার্চ শুরু

৮:২৮ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, অক্টোবর ১৬, ২০২০ প্রজন্মের ভাবনা
dha

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ দেশব্যাপী ধর্ষণ, যৌন হয়রানি ও নারীর প্রতি ক্রমবর্ধমান সহিংসতার ঘটনা এবং বিচারহীনতার সংস্কৃতির প্রতিবাদে ঢাকা থেকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলা পর্যন্ত লংমার্চ কর্মসূচি শুরু করেছেন কয়েকটি বামপন্থী ও নারী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শাহবাগ থেকে লংমার্চটি শুরু হয়। বিক্ষোভকারীরা ‘ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’ ব্যানারে ৯টি দাবি নিয়ে এ লংমার্চ শুরু করে। তারা ধর্ষণবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে নোয়াখালীর দিকে অগ্রসর হয়।

লংমার্চে অংশগ্রহণকারী ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী বলেন, ‘আমাদের এই লংমার্চ ধর্ষণ ও অবিচারের বিরুদ্ধে হওয়ায় আশা করি পুলিশ তাতে বাধা দেবে না, তবে কিছু ছাত্র সংগঠন বাধা দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সহ-সভাপতি সাদিকুল ইসলাম সাদিক বলেন, ‘প্রায় ৪৫০ জন নেতা-কর্মী এই কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন। প্রথমে গুলিস্তান থেকে সাতটি বাসে যাত্রা শুরু হবে, পরে নারায়ণগঞ্জ থেকে আরও পাঁচটি বাস যুক্ত হবে৷’

এদিকে, লংমার্চকারীরা নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে একটি সমাবেশ করেছে এবং শনিবার নোয়াখালীর মাইজদীতে আরেকটি সমাবেশ করবে।

তাদের দাবির মধ্যে রয়েছে-সারাদেশে অব্যাহত ধর্ষণ-নারীর প্রতি সহিংসতার সাথে যুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা, ধর্ষণ, নিপীড়ন বন্ধ ও বিচারে ব্যর্থ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অবিলম্বে অপসারণ, পাহাড়-সমতলে আদিবাসী নারীদের ওপর সামরিক-বেসামরিক সকল প্রকার যৌন ও সামাজিক নিপীড়ন বন্ধ করা।

সম্প্রতি সিলেটের এমসি কলেজে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় গৃহবধূর শ্লীলতাহানির ঘটনার পর অক্টোবরের শুরু থেকেই দেশজুড়ে ধর্ষণ ও সহিংসতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু হয়।

এদিকে, ধর্ষণের ক্রমবর্ধমান এই ঘটনার বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদের পরিপ্রেক্ষিতে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে সংশোধিত ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০’ অধ্যাদেশ আকারে জারি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ, ২০০০’ জারি করেন।

দেশজুড়ে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী আন্দোলন এবং ধর্ষণকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার দাবির মধ্যে সরকার এই পদক্ষেপ নিয়েছে।

সুত্রঃ ইউএনবি