• আজ রবিবার, ৬ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ২০ জুন, ২০২১ ৷

মুসলিম দেশগুলোকে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদের

হাসানী
❏ সোমবার, অক্টোবর ২৬, ২০২০ জাতীয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর- ফ্রান্সে মুসলমানদের ওপর দমন-পীড়নের প্রতিবাদ এবং ফ্রান্স সরকার কর্তৃক রাষ্ট্রীয় বহুতল ভবন সমূহে মহানবী (সা.) কে অবমাননা করে বিকৃত কার্টুন প্রকাশের তীব্র প্রতিবাদ, নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানিয়েছেন মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী।

আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) সকালে ঢাকা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়া ও মইনীয়া যুব ফোরামের উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি মুসলিম দেশগুলোকে এ আহ্বান জানান।

সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী বলেন, ফ্রান্স সরকার আগুন নিয়ে খেলছে। বারবার মহানবী (সা.) কে ব্যঙ্গ করে কার্টুন প্রকাশ করে বিশ্বের শান্তিকামী দুইশ কোটি মুসলমানের হৃদয়ে আঘাত করছে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে তারা মুসলমানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। অথচ কোনো ধর্ম ও ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের অবমাননা করা মত প্রকাশের স্বাধীনতার আওতায় পড়ে না। এ ধরনের বিকৃত তৎপরতায় আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি বাধাগ্রস্ত হয় এবং দেশে দেশে অনৈক্য ও বৈরিতা বাড়ে। যা কারো জন্য কল্যাণ বয়ে আনবেনা। ফ্রান্স সরকারকে অবিলম্বে এই বিপজ্জনক খেলা বন্ধ করে মুসলমানদের নিকট ক্ষমা চাইতে হবে।

তিনি বলেন, মুসলিম বিশ্বের অনৈক্যের কারণে মুসলিম বিদ্বেষীরা আস্কারা পাচ্ছে এবং ইসলাম, মহানবী (সা.) ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে বিষোদগারের সাহস পাচ্ছে। তাই, মুসলিম দেশগুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে ইসলামী কমন মার্কেট গড়ে তোলা সময়ের দাবি।

তিনি উগ্র জঙ্গী কর্মকান্ড চালিয়ে দেশে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কারণে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপের জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানান।

মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আন্জুমান কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সাবেক এসপি আবুল কালাম আজাদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক সামশুল আলম বকুল, প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমিন ভুঁইয়া, সহ-প্রচার সম্পাদক শাহ্ মোহাম্মদ ইব্রাহিম মিয়া মাইজভাণ্ডারী, মইনীয়া যুব ফোরাম সাধারণ সম্পাদক শাহ্ মোহাম্মদ আসলাম হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক ঢালী কামরুজ্জামান হারুনসহ আন্জুমান ও মইনীয়া যুব ফোরামের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।