পুলিশ ও জনগণের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি করতে হবে: জিএমপি কমিশনার

GMP Commissioner
❏ শনিবার, অক্টোবর ৩১, ২০২০ ঢাকা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর : আমাদের সৎ কাজের নির্দেশনা দিতে হবে। বাধা দিতে হবে অসৎ ও মন্দ কাজে। মনে রাখতে হবে ভালো ও মন্দ সমান নয়। কমিউনিটি পুলিশিংয়ের ধারণা সৃষ্টি হয়েছে সংঘবদ্ধভাবে জনগণের অংশগ্রহণে জনগণের মতামতের ভিত্তিতে পুলিশের সঙ্গে সর্বোত্তম সেবার ভিত্তিতে নিজের অঙ্গীকার পূরণ করে কাজ করা।

শনিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুরে জিএমপির সদর থানা প্রাঙ্গণে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ ও জনগণের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি করতে হবে। মনে রাখতে হবে আমরা সবাই পরস্পরের ভাই। সমাজ থেকে অপরাধ দূরীকরণ, অপরাধের কারণ দূরীকরণ এবং সমাজের অন্যান্য যে সমস্ত সমস্যা আছে সেগুলোর সমাধান দেয়াই হলো কমিউনিটি পুলিশের কাজ। অপরাধীদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা এবং যারা নিরীহ জনগণ আছে তাদেরকে যাতে সার্বিক নিরাপত্তা প্রদান করা সম্ভব হয় সেটা নিশ্চিত করা।

অনুষ্ঠানে জিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মো. আজাদ মিয়ার সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম, জিএমপির উপকমিশনার শরিফুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ওয়াজ উদ্দিন মিয়া, পরিবহন শ্রমিক নেতা সুলতান আহমদ সরকার, নারী কাউন্সিলর আয়েশা আক্তার, বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ, আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন মহি, কমিউনিটি পুলিশিংয়ের নেতা ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।