🌏 সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • f

বাইডেনের প্রেসিডেন্সির প্রথম দিনেই মুসলিম নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সম্ভাবনা

⏱ ৭:১৯ অপরাহ্ন | রবিবার, নভেম্বর ৮, ২০২০ 📂 আন্তর্জাতিক
baidennn

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ২০১৭ সালে দায়িত্ব গ্রহণের কিছুদিন পরই প্রেসিডেন্টের নির্বাহী আদেশে যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম নিষেধাজ্ঞা জারি করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এমন সিদ্ধান্তে নিন্দার ঝড় বয়ে যায় বিশ্বজুড়ে। এখন ক্ষমতার পালাবদলে দায়িত্বে এসেছেন জো বাইডেন।

গত মাসেই বাইডেন জানিয়েছেন, ক্ষমতায় এলে হোয়াইট হাউজে তার প্রথম দিনই হবে যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম নিষেধাজ্ঞার শেষ দিন। এখন বাইডেন নির্বাচিত হওয়ায় এ নিয়ে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়েছে।

মুসলিম সম্প্রদায়ের উদ্দেশে বাইডেন বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি আপনাদের অবদানকে সম্মান জানাতে এবং সমাজ থেকে ঘৃণার বিষয় উপড়ে ফেলতে আমি আপনাদের সঙ্গে কাজ করবো। আমার প্রশাসন প্রতিটি স্তরেই মুসলিম আমেরিকানদের অবদান দেখতে চাইবে। হোয়াইট হাউসে প্রথম দিনই আমি ট্রাম্পের অসাংবিধানিক মুসলিম নিষেধাজ্ঞার পরিসমাপ্তি ঘটাবো।

এদিকে শনিবার বিজয় ভাষণে ঐক্যবদ্ধ আমেরিকা গড়ার অঙ্গীকার করেছেন বাইডেন। বলেছেন, আমি এমন একজন রাষ্ট্রপতি হওয়ার অঙ্গীকার করছি যিনি বিভাজন না করে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে চান। যিনি লাল ও নীল রাজ্য দেখেন না, কেবল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে দেখেন।

তিনি বলেন, এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ কথা বলেছে। তারা আমাদের সুস্পষ্ট বিজয় এনে দিয়েছেন। এটা জনগণের বিজয়।

নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‌‘এই জাতির ইতিহাসে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আমরা সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছি–সাত কোটি ৪০ লাখ ভোট। আমার ওপর আপনাদের এই আস্থা ও বিশ্বাসের জন্য আমি কৃতজ্ঞ।

জো বাইডেন বলেন, কোটি কোটি আমেরিকান আমার দৃষ্টিভঙ্গির পক্ষে ভোট দিয়েছেন। এটি আমার জীবদ্দশায় এক অনন্য সম্মান। তিনি বলেন, যে দৃষ্টিভঙ্গির প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ রায় দিয়েছে তাকে বাস্তবে পরিণত করাই এখন আমাদের কাজ।

বাইডেনের ঐতিহাসিক বিজয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে, ‘দ্য কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেশন্স-সিএআইআর। মুসলমানদের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাইডেনের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের তাগিদ দেয় সংস্থাটি।

সংস্থাটির জাতীয় নির্বাহী পরিচালক নিহাদ আওয়াদ বলেন, প্রেসিডেন্ট তার কার্যদিবসের প্রথম দিনেই ট্রাম্পের দেয়া নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করবে। এই ধরনের বৈষম্য সমাজের অস্থিরতা তৈরি করে বলেও মনে করেন তিনি। বাইডেনকে সহযোগিতায় এখানকার মুসলিম সম্প্রদায় চেষ্টা করতে প্রস্তুত বলেও জানান নিহাদ।