• আজ বৃহস্পতিবার, ১০ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ২৪ জুন, ২০২১ ৷

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে শিগগিরই ত্রিপক্ষীয় আলোচনা শুরুর আশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

momen
❏ সোমবার, নভেম্বর ৯, ২০২০ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ মিয়ানমারে নতুন সরকার গঠনের পর ত্রিপক্ষীয় ব্যবস্থার মাধ্যমে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে আলোচনা পুনরায় শুরুর ব্যাপারে সোমবার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

তিনি আজ সোমবার তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে ফেব্রুয়ারি থেকে মিয়ানমারের সাথে আমাদের আলোচনা স্থগিত রয়েছে। আমরা (মিয়ানমারের) নতুন সরকার ক্ষমতা নেয়ার পরপরই তা আবার শুরু করার বিষয়ে আশাবাদী।’

তিনি বলেন, মিয়ানমার ঢাকাকে জানিয়েছে যে তারা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে নিরাপত্তা ও সুরক্ষা বিধানে নেয়া পদক্ষেপের বিষয়ে একটি পুস্তিকা প্রকাশ করবে।

তিনি বলেন, এ পুস্তিকাটি রোহিঙ্গাদের মাঝে বিতরণ করা হবে। কারণ বাস্তুচ্যুত মানুষের মধ্যে আস্থার ঘাটতি রয়েছে, মিয়নমারের পক্ষ থেকে এটি নিরসন করা উচিত। মিয়ানমার বাংলাদেশকে তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো উল্লেখ করে বলেন, ‘এটি একটি সুসংবাদ… আমরা ইতিবাচক থাকতে চাই।’

বাংলাদেশে অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ফিরিয়ে নেবে বলে সম্প্রতি তারা চীনকে আশ্বস্ত করেছে। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই সম্প্রতি টেলিফোনে ড. মোমেনের সাথে আলাপকালে এ তথ্য জানিয়েছেন।

ওয়াং ই বলেন, চীন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমারের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলেছে।

ড. মোমেন বলেন, চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইয়ি তাকে আশ্বাস দিয়েছেন যে মিয়ানমারের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর শিগগিরই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে বাংলাদেশ, চীন ও মিয়ানমারের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের দ্বিতীয় দফা ‘ত্রিপক্ষীয় আলোচনা’র ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নেয়া হবে।

এদিকে, বার্তা সংস্থা এপির খবর অনুযায়ী মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি সোমবার দাবি করেছে যে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ সরকার গঠন এবং ক্ষমতা ধরে রাখতে তারা পার্লামেন্টে পর্যাপ্ত আসন জিতেছে।

ইউনিয়ন নির্বাচন কমিশন এখনও রবিবারের নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ সম্পন্ন না করলেও দলটি এ দাবি করেছে।

ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির তথ্য কমিটির মুখপাত্র মনয়ওয়া অং শিন বলেন, ‘আমি এখন নিশ্চিত করতে পারি যে আমরা ৩২২টির বেশি আসন পেয়েছি।’ মিয়ানমারের পার্লামেন্টে আসন রয়েছে ৬৪২টি।