এবার অর্থপাচার মামলায় গ্রেফতার দেখানো হলো সম্রাটকে

১২:২৫ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, নভেম্বর ১০, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: যুবলীগের বহিস্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন সম্রাটকে অবৈধ উপায়ে ১৯৫ কোটি টাকা অর্জন ও পাচারের অভিযোগে করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এ মামলায় সকালে অ্যাম্বুলেন্সে করে সিএমএম আদালতে আনা হয় সম্রাট ও আরমানকে।

ঢাকা মহানগর হাকিম (সিএমএম) এ ২ আসামিকে গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করে সিআইডি। সোমবার (০৯ নভেম্বর) দুই পক্ষের শুনানি শেষে মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারীর তাকে গ্রেফতার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেন।

গত ১২ সেপ্টেম্বর রাজধানীর রমনা থানায় সম্রাটের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের অভিযোগে মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। মামলায় সম্রাটের অন্যতম সহযোগী এনামুল হক আরমানকেও আসামি করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ১৯৫ কোটি টাকা অজন এবং সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় পাচার করার অভিযোগ আনা হয়।

মামলার এজাহার বলা হয়, সম্রাট রাজধানীর মতিঝিল, ফকিরাপুল, পল্টন ও কাকরাইল এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে অবৈধ অর্থ উপার্জন করেছেন। তার উপার্জিত অবৈধ অর্থের মধ্যে ১৯৫ কোটি টাকা তিনি তার সহযোগী আরমানের সহায়তায় সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় পাচার করেছেন।

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু করে এলিট ফোর্স র‌্যাব। ক্যাসিনো তদন্তে নেমে ওই সময় যুবলীগ নেতা সম্রাটে সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

গত বছরের ৫ অক্টোবর ভোর ৫টার দিকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয় আত্মগোপনে থাকা সম্রাটকে। তার সঙ্গে সহযোগী আরমানকেও আটক করা হয়। ঢাকায় এনে তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদও করে র‌্যাব। পরে সম্রাটের কার্যালয় থেকে প্রাণীর চামড়া পাওয়ায় ৬ মাসের সাজা দেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।