পরাজয় মেনে নেওয়ার ইঙ্গিত ট্রাম্পের

৪:৪৩ অপরাহ্ন | শনিবার, নভেম্বর ১৪, ২০২০ আন্তর্জাতিক
ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের বিজয় মেনে নিতে অস্বীকার করে আসা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার অবস্থান বদলানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন। নির্বাচনে জালিয়াতির ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলে বেশ কিছু অঙ্গরাজ্যে মামলা করেছেন তিনি।

ট্রাম্পের দাবি, তিনিই নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। তবে শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প পূর্ববর্তী অবস্থান থেকে খানিকটা সরে এসে বলেছেন, তিনি প্রেসিডেন্ট থাকবেন কিনা তা সময়ই বলে দেবে।

করোনাভাইরাস টাস্কফোর্স সংক্রান্ত এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প এসব কথা বলেছেন বলে খবর দিয়েছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি।

নির্বাচন শেষ হওয়ার পর দীর্ঘ সময় ক্যামেরার সামনে কথা বলা থেকে বিরত থাকেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুক্রবার হোয়াইট হাউসের রোজ গার্ডেনে আয়োজিত এক সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলনে সেই নীরবতা ভাঙেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

করোনাভাইরাসের বিস্তার অব্যাহত থাকলেও যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে আবারও লকডাউন শুরু করবেন না জানিয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘আশা করছি ভবিষ্যতে যেকোনও কিছু ঘটতে পারে, কোন প্রশাসন দায়িত্ব নেবে তা কেউ বলতে পারে না, আমার ধারণা এজন্য সময় লাগবে।’ ট্রাম্পের এই ইঙ্গিতকে পরাজয় মেনে নেওয়ার আভাস বলে মনে করছেন অনেকেই।

যুক্তরাষ্ট্রে ৩ নভেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের জয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেছে। ট্রাম্প নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ তুলেছেন। তবে অভিযোগের সপক্ষে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি।

শুক্রবার ট্রাম্প টুইটে তাঁর অভিযোগে সমর্থন দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান। টুইটে তিনি বলেন, নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে। ওয়াশিংটনে স্থানীয় সময় আজ শনিবার সমাবেশের পরিকল্পনা করা হয়েছে। ট্রাম্প বলেন, তিনি এই সমাবেশকে থামিয়ে তাঁদের হ্যালো বলবেন। ‘স্টপ দ্য স্টিল’, ‘মিলিয়ন মেগা মার্চ’ ও ‘উইমেন ফর আমেরিকা ফার্স্ট’ ব্যানারে কয়েকটি দল সমাবেশের পরিকল্পনা করেছে।

আগামী ২০ জানুয়ারি বাইডেনের আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করার কথা। তবে বাইডেনকে প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক তথ্যও দিচ্ছে না ট্রাম্প প্রশাসন। বাইডেন ইতিমধ্যে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ হিসেবে রন ক্লেইনকে নিয়োগ দিয়েছেন। ট্রাম্প যে প্রয়োজনীয় তথ্য দিচ্ছেন না, তা নিয়ে সম্প্রতি মুখ খুলেছেন ক্লেইন। তিনি বলেছেন, এর ফলে ঝুঁকির সৃষ্টি হয়েছে।

আর নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগও কিন্তু কোনোখানে ধোপে টিকছে না। স্থানীয় সময় শুক্রবার মিশিগানের বিচারক রিপাবলিকানদের ভোট কারচুপির আরেকটি অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন। ট্রাম্পের তোলা ভোট জালিয়াতির অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছেন মার্কিন নির্বাচন কর্মকর্তারা।

গত বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে গঠিত একটি কমিটি নির্বাচন নিয়ে ট্রাম্প শিবিরের তোলা বিতর্কের মধ্যেই বলেছে, এই নির্বাচন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের অন্যতম সুরক্ষিত নির্বাচন। ভোট হারিয়েছে, বদল হয়েছে বা অন্য কোনোভাবে পরিবর্তন হয়েছে—এমন কোনো প্রমাণ মেলেনি।