জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং জাতীয় সংগীত ছাড়াই কোটালীপাড়ায় কৃষক লীগের সম্মেলন!

৪:২৯ অপরাহ্ন | সোমবার, নভেম্বর ১৬, ২০২০ ঢাকা
kotalipara photo

মেহেদী হাসানাত,  গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: মুজিববর্ষ ও করোনা ভাইরাসের মধ্যে দিয়ে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই সম্মেলনে উত্তোলন করা হয় না জাতীয় ও দলীয় পতাকা। গাওয়া হয়না জাতীয় সংগীত। মানা হয় না সামাজিক দূরত্ব। এমনকি অধিকাংশ নেতাকর্মীরা মাস্ক ব্যবহার করেন না। এভাবে সম্মেলন করলে করোনার প্রভাব বাড়বে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। অপরদিকে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশন না করায় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

দলীয় সূত্রে জানাগেছে, গত ১৫ অক্টোবর থেকে কোটালীপাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন কৃষক লীগের সম্মেলন শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে বান্ধাবাড়ি, রামশীল, শুয়াগ্রাম, কান্দি, সাদুল্লাপুর, রাধাগঞ্জ, আমতলী ইউনিয়নের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সর্বশেষ গত রবিবার স্থানীয় আমতলী ইউনিয়ন ভবন চত্ত্বরে আমতলী ইউনিয়ন কৃষক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই সম্মেলনসহ বিগত সকল সম্মেলনে উত্তোলন করা হয়নি জাতীয় ও দলীয় পতাকা । গাওয়া হয়নি জাতীয় সংগীত। সম্মেলনে আগত অধিকংশ নেতাকর্মীরাই মাষ্ক ব্যবহার করেননি। এমন কি তারা মানেননি সামাজিক দুরুত্ব ।

উপজেলা চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ বিশ্বাস সম্মেলনটি উদ্বোধন করেন। আমতলী ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি সিদ্দিক বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হোসেন শেখ, পৌর মেয়র হাজী মো: কামাল হোসেন শেখ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এস এম হুমায়ুন কবির, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান হাওলাদার, সাবেক পৌর মেয়র এইচ এম অহিদুল ইসলাম,  ইউপি চেয়ারম্যন গোলাম কিবরিয়া দাড়িয়া, হান্নান শেখ, উপজেলা কৃষক লীগের যুগ্ম আহবায়ক অরুন মল্লিক, সদস্য সচিব রতন মিত্র বক্তব্য রাখেন।

নাম প্রকাশ না  করার শর্তে উপজেলা কৃষক লীগের এক নেতা বলেন, কৃষক লীগের ইউনিয়ন সম্মেলনগুলোতে জাতীয়  ও দলীয় পতাকা উত্তোলন না করাসহ অনেক অব্যবস্থপনা রয়েছে। আমাদের নিয়ম শৃঙ্খলার সাথে সম্মেলন করা উচিৎ।

উপজেলা কৃষক লীগের সদস্য সচিব রতন মিত্র বলেন, আমরা উপজেলা ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭টি ইউনিয়নের সম্মেলন শেষ করেছি। এসব সম্মেলনে জাতীয় বা দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়নি। এমনকি জাতীয় সংগীতও গাওয়া হয়নি। এটি আমাদের ভুল হয়েছে। আগামী সম্মেলনগুলোতে এ ভুল হবে না।

তিনি আরো বলেন, সম্মেলনে আগত আমাদের সকল নেতা-কর্মীদের মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা উচিৎ।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা ডা. সুশান্ত বৈদ্য বলেন, আমাদের দেশে এখন করোনার দ্বিতীয় ধাপ চলছে। এ সময়ে আমাদের সকলের মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা উচিৎ।