একগাছে ৭২ মৌচাক!

Sherpur
❏ সোমবার, নভেম্বর ২৩, ২০২০ ময়মনসিংহ

মিজানুর রহমান,  (নালিতাবাড়ী) শেরপুর প্রতিনিধিঃ শেরপুরের ঝিনাইগাতি উপজেলার পর্যটন কেন্দ্র গজনীর পাহাড়ে (গজনী অবকাশ কেন্দ্র) শতবর্ষী এক বট গাছের আগাগোড়ায় ৭২টি মৌচাক। এটি দেখার  জন্য প্রতিদিনই গজনী অবকাশ কেন্দ্রে উৎসুক মানুষে ভিড় জমে।

সরেজমিনে জানা গেছে, অবকাশ কেন্দ্রের ঠিক মাঝখানে দাঁড়িয়ে আছে শতবর্ষী একটি বটগাছ। এক যুগ আগে ঝড়ে গাছের অর্ধেক ভেঙে গেছে। অবশিষ্ট থাকা গাছটির গোড়া থেকে শুরু করে মগডাল পর্যন্ত চাক বেঁধে নির্বিঘ্নে বাস করছে মৌমাছির দল।

মৌমাছির গুঞ্জনে পুরো এলাকা মুখরিত। দর্শণার্থীরা বলছেন এমন দৃশ্য প্রকৃতির এক বিশেষ খেয়াল। কেউ যাতে মৌমাছিগুলোকে বিরক্ত না করে তার জন্য বিশেষ খেয়াল রাখে পর্যটন কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এই গাছটি মৌমাছিদের বিশ্বস্ত অনেক আগে থেকেই। সব সময় ৩-৪টি মৌচাক থাকেই। করোনার কারণে পর্যটন কেন্দ্রে মানুষজনের তেমন চলাফেরা, শব্দ দূষণ না থাকায় মৌচাকের সংখ্যা বেড়ে গেছে। এদের কেউ অত্যাচার না করলে মৌচাকের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে ধারণা এলাকাবাসীর। এই মৌমাছিগুলোর আরও নিরাপত্তা বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

মৌচাষি আব্দুল হালিম বলেন, এই মৌমাছিগুলো ডাচ জাতের বন মৌমাছি। এরা সংঘবদ্ধভাবে এক জায়গায় থাকতে ভালোবাসে। ফুল থেকে মধু আহরণের সহজ উৎস হওয়ায় মৌমাছিগুলো প্রাচীন এ বটগাছটিতে বাসা বেঁধেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবেল মাহমুদ বলেন, একটি গাছে এতগুলো মৌচাক সচরাচর দেখা যায় না। বটগাছটিতে ৭০ থেকে ৭৫টি মৌচাক রয়েছে। এসব মৌচাক থেকে কেউ যেন মধু আহরণ এবং মৌমাছিদের বিরক্ত না করে তার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।