ভাস্কর্য নিয়ে হৈচৈ করে মাঠ গরম করা যাবে না: মতিয়া চৌধুরী

◷ ১০:০২ অপরাহ্ন ৷ বুধবার, নভেম্বর ২৫, ২০২০ ময়মনসিংহ
motia

মিজানুর রহমান, নালিতাবাড়ী, শেরপুর প্রতিনিধিঃ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, বর্তমানে কিছু লোক ভাস্কর্য নিয়ে হৈচৈ শুরু করেছেন। ভাস্কর্য নিয়ে হৈচৈ করে মাঠ গরম করা যাবে না।

তিনি তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, তারা এটাও বলুক ছবি তুলা যাবে না। ছবি না তোলা গেলে পাসপোর্ট ভিসা এমনকি হজ্বও করা যাবে না। হজ্বের বিরুদ্ধে তারা ফতোয়া দিক। আসলে এগুলো হলো গোমরাহি কথা।

বুধবার (২৫ নভেম্বর) দিনব্যাপী তার নির্বাচনী এলাকা শেরপুর-২ (নকলা-নালিতাবাড়ী) আসনের নালিতাবাড়ী উপজেলার পলাশীকুড়া জনতা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পল্লী চিকিৎসক, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, জেলে, নরসুন্দর, আশ্রয়ন কেন্দ্রের বাসিন্দাদের মাঝে সৌরবাতি ও বিভিন্ন মসজিদ-গীর্জায় ঢেউটিন ও নগদ অর্থ বিতরণকালে এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় তিনি আরো বলেন, ইরান, ইন্দোনেশিয়ায় ভাস্কর্য আছে। পাকিস্তানে স্টেচু আছে। পাকিস্তানের নোটে জিন্নাহ সাহেবের ফটো আছে। এসব নোট পকেটে নিয়ে তারা তাহলে নামাজ পড়ে কিভাবে? তাই এগুলো হলো গুমরা কথা। এসব গুমরা কথা বাদ দিয়ে সবাই মিলে দেশটাকে সুন্দর করে গড়ে তোলার আহবান জানান তিনি।

মতিয়া চৌধুরী আরো বলেন, এরা রেললাইন উঠিয়েছে। বাসে আগুন দিয়েছে। আবার এরাই এক সময় বলবে নারীদের লেখাপড়া করানো যাবেনা। এরা হলো কচ্ছপের মতো সুযোগ বুঝে অল্প অল্প করে মুখ বের করে। তাই তিনি উপস্থিত সকলকে এদের থেকে সাবধান থাকতে বলেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম, নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সবুর, সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ বকুল, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সরকার, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সরোয়ার হোসেন স্বপন, কৃষক লীগের যুগ্ম আহবায়ক আজাদ মিয়াসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্নস্তরের নেতৃবৃন্দ।

এদিন মাতিয়া চৌধুরী টিআর, কাবিখার অর্থায়নে ১২টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় দ্বিতীয় শ্রেণির ২ হাজার ৯৬০টি, পল্লী চিকিৎসক, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, জেলে, নরসুন্দর, আশ্রয়ন কেন্দ্রের বাসিন্দাদের মাঝে ২ হাজার ৫৮১টি সৌরবাতি বিতরণ করেন। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন মসজিদ ও গীর্জায় ২৭৫ বান্ডেল ঢেউটিন এবং নগদ ৩ হাজার করে টাকা বিতরণ করেন।